মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
বিশেষ নিবন্ধ : শ্রাবনের চরিত্রহনণ বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠার পেছনের অনুপ্রেরণা বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বাংলাদেশ-ভারত আমদানি-রফতানি চুক্তির প্রথম ট্রায়ালের পণ্য মোংলায় খালাস : মেঘালয় ও আসামের উদ্দেশ্যে যাত্রা নির্বাচন আসলেই এদেশের কিছু ধান্দাবাজ একত্রিত হয় : তালুকদার খালেক দেশে রিজার্ভ নেই-একদিন দেখবেন শেখ হাসিনাও মসনদে নেই : বিএনপি বঙ্গমাতার গুণাবলী ধারণ করে মেয়েদের এগিয়ে যেতে হবে : খুবি উপাচার্য বঙ্গবন্ধুর বাঙালির মুক্তির মহানায়ক হয়ে ওঠার পেছনে প্রেরণা ছিলেন  বঙ্গমাতা : সিটি মেয়র বঙ্গবন্ধু ছিলেন জাতির কান্ডারি ও রাজনীতির কবি : এসডিএফ চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ বাংলাদেশ-ভারত ট্রানজিট চুক্তি বাস্তবায়নে ভারতের ট্রায়াল জাহাজ মোংলা বন্দরে’ খুলনায় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকীতে দু:স্থ্যদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরন

সুন্দরবনে চরম সংকটে বিপর্যস্ত বাঘ, প্রতিশ্রুতির যথাযথ বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেই

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় শনিবার, ৩০ জুলাই, ২০২২
  • ৯ পড়েছেন

মোংলা প্রতিনিধি।।

সুন্দরবনের বাস্তুসংস্থান ও টিকে থাকার জন্য বাঘের ভূমিকা অনেক। উপকূল টিকে আছে সুন্দরবনের জন্য। আর সুন্দরবন টিকে আছে বাঘের জন্য। আর এই বাঘ বিলুপ্ত হলে সুন্দরবন উজাড় হয়ে যাবে। খালে বিষ দিয়ে মাছ মারা, বৃক্ষ নিধন, বন্যপ্রাণী হত্যা, চোরাচালান সিন্ডিকেট ও জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুপ প্রভাবে সুন্দরবনের বাঘ বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। বাংলাদেশসহ বাঘ সমৃদ্ধ ১৩টি দেশের রাষ্ট্র প্রধানরা ২০১০ সালে বাঘ সুরক্ষায় যথাযথ অবকাঠামো ও আবাসস্থলের নিরাপদ পরিবেশ তৈরি, গনসচেতনতা বৃদ্ধি, দক্ষ জনবল সৃষ্টিসহ নানা কাযর্ক্রমের পরিকল্পনা ঘোষণা করে। কিন্তু গত ১২বছরেও কোন পরিকল্পনার পূর্ন বাস্তবায়ন করতে না পারায় বাঘের অস্তিত্বের হুমকি আরও বেড়েছে।ফলে দিন দিন বাঘ বিপন্ন প্রজাতির তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। বাঘ এবং বাঘের আবাসস্থল সুন্দরবন রক্ষায় বিশ্ব নেতৃবৃন্দ, সরকার এবং বন সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক হয়ে কাজ করতে হবে।শুক্রবার বিশ্ব বাঘ দিবস উপলক্ষে মোংলা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ মিলনায়তনে ”বাঘ ও বাঘের আবাসস্থল সুন্দরবন রক্ষায় করণীয়” শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন(বাপা)’র সাধারণ সম্পাদক শরীফ জামিল এসব কথা বলেন। মোংলা উপজেলা প্রশাসন, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন(বাপা), ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ ও পশুর রিভার ওয়াটারকিপার আয়োজনে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।এছাড়া “বাঘ আমাদের অহংকার, রক্ষার দায়িত্ব সবার” প্রতিপাদ্যে শুক্রবার সকালে র‍্যালী, আলোচনাসভা ও চিত্র প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে মোংলার সুন্দরবন সংলগ্ন পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জে বিশ্ব বাঘ দিবস পালন করা হয়। ২০১০ সালে সেন্ট পিটার্সবার্গে অনুষ্ঠিত বাঘ সম্মেলনের আলোকে প্রতিবছরের ২৯জুলাই পালিত হয় বিশ্ব বাঘ দিবস। পুরো বিশ্বজুড়ে দিবসটি পালন করা হলেও বাংলাদেশ, ভারত, নেপালসহ ১৩টি দেশে বাঘের ঘনত্ব বেশি থাকায় এসব দেশে গুরুত্ব সহকারে দিবসটি পালন করে। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বনের পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বাঘের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বাঘের সংখ্যা কমে গেলে বনের পরিবেশের ভারসাম্য হারাবে। সুন্দরবনের টিকে থাকার জন্য বাঘের ভূমিকা অনন্য। উপকূল টিকে আছে সুন্দরবনের জন্য। আর সুন্দরবন টিকে আছে বাঘের জন্য। আর এই বাঘ বিলুপ্ত হলে সুন্দরবন উজাড় হয়ে যাবে। খালে বিষ দিয়ে মাছ মারা, বৃক্ষ নিধন, বন্যপ্রাণী হত্যা, চোরাচালান সিন্ডিকেট ও জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুপ প্রভাবে বাঘ এবং সুন্দরবন দুইই বিপর্যস্ত। বাঘ এবং বাঘের আবাসস্থল সুন্দরবন রক্ষায় বিশ্ব নেতৃবৃন্দ, সরকার এবং বন সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক হতে হবে।বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) বাগেরহাটের আহ্বায়ক পশুর রিভার ওয়াটারকিপার মো. নূর আলম শেখ’র পরিচালনায় ও উপজেলা নির্বাহি অফিসার কমলেশ মজুমদার’র সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন মোংলা পোর্ট পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আব্দুর রহমান। আলোচনা সভা পরিচালনা করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন(বাপা) বাগেরহাটের আহ্বায়ক পশুর রিভার ওয়াটারকিপার মো. নূর আলম শেখ, আমেরিকা থেকে আগত পরিবেশ ও জলবায়ু বিষয়ক তরুন গবেষক ইভান টিমস, বাপা’র কেন্দ্রিয় নেতা তোফাজ্জেল সোহেল, সুন্দরবন ও উপকূল সুরক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ক নিখিল ভদ্র, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদ, জিটিভি’র সিটি এডিটর রাজু আহমেদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাংস্কৃতিক সম্পাদক সাকিলা পারভীন রুমা, সমাজ কল্যান ও উন্নয়ন সংস্থার জেসমিন প্রেমা, পশুর রিভার ওয়াটারকিপার ভলান্টিয়ার আব্দুর রশিদ হাওলাদার, সুন্দরবনের মৎস্যজীবি বেলায়েত সরদার, বাপা নেতা ইস্রাফিল বয়াতি, কমলা সরকার, শেখ রাসেল, নদীকর্মী হাছিব সরদার প্রমূখ।পরে  শিশুদের চিত্রাংকণ প্রতিযোগিতা ও বিজয়ী মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এছাড়া বাঘ ও বাঘের আবাসস্থল সুন্দরবন রক্ষায় সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে একটি বর্নাঢ্য র‌্যালী  শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। সভাপতির বক্তৃতায় উপজেলা নির্বাহি অফিসার কমলেশ মজুমদার বলেন, সরকার বাঘ এবং বাঘের আবাসস্থল সুন্দরবন রক্ষায় নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সুন্দরবন সুরক্ষা প্রকল্পের মাধ্যমে সরকার সুন্দরবন এবং বাঘ রক্ষায় কাজ করে যাচ্ছে। অপরদিকে, পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেনের সভাপতিত্বে “বাঘ ও বাঘের আবাসস্থল সুন্দরবন রক্ষায় করণীয়” শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বন কর্মকর্তা বন্যপ্রাণী প্রকৃতি বিভাগ খুলনা নির্মল কুমার পাল ,মোংলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার প্রমুখ।##

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu