সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
খুলনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবের ১০১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠান ০১জুলাই পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ ঘোষণা পদ্মা সেতুতে হ-য-ব-র-ল অবস্থা : নাটবোল্ট খোলা যুবক বিএনপি কর্মী বাইজীদ আটক খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে সিটিজেন চার্টার এন্ড জিআরএস-১ শীর্ষক প্রশিক্ষণ টেকসই অর্থায়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ ও সচেতনতামূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদল নেত্রী রুমার বাড়িতে হামলা,  জেলা ছাত্রদলের নিন্দা  নগরীতে হিজড়া ও লিঙ্গ বৈচিত্রময় জনগোষ্টির বৈষম্য দুরীকরনে নেটওয়ার্কিং মিটিং অনুষ্ঠিত সিটি মেয়রের কাছে নাগরিক ফোরাম প্রস্তাবিত উন্নয়ন পরিকল্পনা উপস্থাপন ফকিরহাটে মাতৃত্বকালীন ভাতা গ্রহণকারী মায়েদের প্রশিক্ষণ ন্যাপ নেতা তপন রায় ছিলেন নির্মোহ, নির্লোভ, নিবেদিত প্রাণ

রামপালে সরকারি খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ : জলাবদ্ধতায় ডুবছে ঘরবাড়ী-স্কুল

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন, ২০২২
  • ৮ পড়েছেন

রামপাল প্রতিনিধি ||

বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার কয়েকটি এলাকায় সরকারি রেকর্ডিয় খালে বাঁধ দিয়ে এক শ্রেনীর প্রভাবশালী ও রাজনৈতিক পোষ্যরা মাছ চাষ করছে। এতে এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে মানুষের ঘরবাড়ি, স্কুলসহ রাস্তাঘাট ডুবে যাচ্ছে। চলতি মৌসুমে বর্ষা জলাবদ্ধতা বাড়ার আশংকায় রয়েছে এলাকাবাসী। অবৈধ খাল দখলকারীদের  প্রভাম ও সন্ত্রাসী বাহিনীর দাপট ও ভয়ভীতির কারনে কেউ মুখ খুলতেও সাহস পাচ্ছে না এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর।দ্রুত সরকারী খালের দখল উচ্ছেদ করে জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি ও পরিবেশ সুরক্ষায় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবীও জানিয়েছেন তারা।

অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার বাঁশতলী ইউনিয়নের গিলাতলা দেয়ালডাঙ্গা এলাকার কয়েক ব্যাক্তি গিলাতলা পশ্চিম পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন স্যাদলার খালে সেতুর কাছে বাঁধ দিয়ে রাখা হয়েছে। স্থানীয় লোকজন বলেছে খালে বাঁধ থাকায় পানি সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। বর্ষা হলে পানিতে এলাকার বাড়ি ঘর তলিয়ে যাচ্ছে। সাধারন মানুষের চলাচল ব্যহত হচ্ছে। এলাকার একাধিক ব্যক্তির সাথে কথা হলে তারা বলেন দেয়ালডাঙ্গা এলাকার আবু বকর তরফদার গত ২/৩ বছর খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করছেন। আবু বকরের বাঁধের দক্ষিন পাশে ওই খালে রয়েছে মিজান মল্লিকের বাঁধ। তিনিও অবৈধ বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করে আসছেন। মিজান মল্লিকের পাশাপাশি রয়েছে তায়েব আলী, বুলু মেম্বার , জাকার শেখ ও ইসরাফিল শেখ এর বাঁধ।

স্থানীয়রা জানান, প্রভাবশালী এসব মানুষ দীর্ঘদিন ধরে খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করার কারনে পানি নিষ্কাশন ঠিক মতো না হওয়ায় বর্ষাকালে পানিতে এলাকা তলিয়ে যায়।পানির প্রবাহ বাধাগ্রস্থ হওয়ায় স্তা-ঘাট পানিতে তলানো থাকে। লোকজন এক স্থান থেকে আরেক স্থানে চলাচল করতে পারেন না। এদিকে, গিলাতলা-রামপাল সড়কের চন্ডিতলা নামক স্থানে বাবুল কাজি নামের আরো এক ব্যাক্তি ঘাটের খাল নামক একটি খালে বাঁধ দিয়ে রেখেছেন। এরফলে এই এলাকায় পানি সরবরাহ ঠিক মতো হচ্ছে না। বর্ষা কালে এলাকায় পানিতে তলিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন বলেন এ খালে বাঁধ থাকায় আমাদের বিশেষ করে বর্ষা কালে চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয়। রাস্তা-ঘাট বাড়ি ঘরের চারপাশ পানিতে তলানো থাকে। সরোজমিন ওই বাঁধের কাছে গিয়ে দেখা গেছে পানি সরবরাহ করার জন্য ছোট একটি পাইপ বসানো হয়েছে। ওই পাইপ দিয়ে যে পানি বের হচ্ছে তা এলাকাবাসির তেমন কাজ আসছে না। এলাকাবাসি বলেছে এবার বর্ষা মৌসুমের শুরুতে ওই খালের বাঁধ কেটে না দিলে তাদের পরিণতি ভয়াবহ হবে।এ ছাড়াও হুড়কা, পেড়িখালীর সাতপুকুরিয়া, ঝনঝনিয়ায় শাহীন, হাফিজুর রহমান ও সালাম বেশ কিছু খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানান, এক শ্রেনীর প্রভাবশালী লোক রাজনৈতিক পরিচয়ে দীঘদিন ধরে সরকারি খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করার কারনে সাধারন মানুষের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন(বাপা)’র বাগেরহাট জেলা নেতা এম,এ সবুর রানা বলেন, বাগেরহাটে নদী খাল দখলের মহোৎসব চলছে। কিন্তু এসব নদী-খাল সুরক্ষায় প্রশাসন নির্বিকার। এক দিকে সরকার নদী খাল সচলের জন্য কোটি কোটি টাকা বরাদ্ধ দিয়েছেন। অন্যদিকে, সরকারি সংস্থাসহ নদী খাল খেকোরা বাঁধ দিয়ে ও স্থাপনা নির্মাণ করে নদী রক্ষা আইন অমান্য করছেন। তিনি সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান। প্রশাসনিকভাবে এসব অবৈধ খাল দখল কারিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে দুর্ভোগের খেসারত দিতে হয় সাধারন মানুষকে। উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানান, যেসব সরকারি খালে অবৈধ বাঁধ আছে তা চিহ্নিত করে বাঁধ কাটার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে কয়েকটি সরকারি খালে থাকা অবৈধ বাঁধ কেট দেয়া হয়েছে। যে সব খালে এখনও বাঁধ আছে তা সহসা কেটে দেয়া হবে।#

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu