ঢাকা ০৬:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রামপালে মাদ্রাসা ভবন নির্মাণে সেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন 

###    রামপালের পেড়িখালী দাখিল মাদ্রসার নতুন ভবন নির্মাণে যুবলীগ নেতার অনিয়ম ও সেচ্ছাচারিতার অভিযোগে এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় উপজেলার পেড়িখালী দাখিল মাদ্রাসার সামনে ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। পেড়িখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য দেন রামপাল উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হোসনেয়ারা মিলি, পেড়িখালী পি, ইউ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সংকর কুমার সিকদার,পেড়িখালী দাখিল মাদ্রাসার সুপার মো. বোরহান উদ্দিন শেখ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকরামুল কবির কচি, বিএনপি নেতা আ. আজিজ বাবু, শিক্ষিকা শামীম আরা শিপ্রা, মো. মোজাফফর হোসেন, সমাজ সেবক আলহাজ্ব আবুল কালাম প্রমুখ। এ সময় বক্তারা বলেন, ১৯৯৭ সালে পেড়িখালী দাখিল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার পর একটি মাত্র টিনসেডে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করে আসছে। জরাজীর্ণ এই ভবনে পাঠদানের চরম ব্যহত হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন বক্তারা। বহু চেষ্টা করে বিগত ২৪ বছর পরে ৩ কোটি ৮৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে ৪ তলা বিশিষ্ট একটি ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হয়। যার ঠিকাদার ঝর্ণা এন্টারপ্রাইজ। ওই প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী মোংলা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ইকবাল হোসেন। ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান গত ইং ৮-০২-২০২১ তারিখ কাজ শুরু করে। যার মেয়াদকাল শেষ হয় আরও ৬ মাস পূর্বে। ওই প্রতিষ্ঠানের মেয়াদকাল শেষ হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট জেলার প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী এবং পেড়িখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম বাবুল ইকবাল হোসেনের সাথে দুর্ব্যবহার করেন বলে বক্তারা অভিযোগ করেন। তারা আরও জানান, নিন্মমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে কাজ শুরুর কয়েক দিনের মধ্যে কিছু মালামাল ছড়িয়ে ছিটিয়ে রেখে চম্পট দেয় ওই ঠিকাদার। এ বিষয়ে ঠিকাদার ইকবাল হোসেন এর সাথে তার মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, আমি ওই প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার নই। মূল ঠিকাদার আসলাম শেখ। তিনি ও ওই নির্মাণ কাজটি অন্যত্র হস্তান্তর করেছেন। শুধু শুধু চেয়ারম্যান আমাকে দোষারোপ করছেন। এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহারের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, উন্নয়নের প্রশ্নে কোন আপোষ নেই। কেউ অনিয়ম করলে তাকে ছাড় দেয়া হবে না। ##

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Banglar Dinkal

রামপালে মাদ্রাসা ভবন নির্মাণে সেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর মানববন্ধন 

প্রকাশিত সময় ০১:০৮:০৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ নভেম্বর ২০২২

###    রামপালের পেড়িখালী দাখিল মাদ্রসার নতুন ভবন নির্মাণে যুবলীগ নেতার অনিয়ম ও সেচ্ছাচারিতার অভিযোগে এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় উপজেলার পেড়িখালী দাখিল মাদ্রাসার সামনে ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। পেড়িখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য দেন রামপাল উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হোসনেয়ারা মিলি, পেড়িখালী পি, ইউ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সংকর কুমার সিকদার,পেড়িখালী দাখিল মাদ্রাসার সুপার মো. বোরহান উদ্দিন শেখ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকরামুল কবির কচি, বিএনপি নেতা আ. আজিজ বাবু, শিক্ষিকা শামীম আরা শিপ্রা, মো. মোজাফফর হোসেন, সমাজ সেবক আলহাজ্ব আবুল কালাম প্রমুখ। এ সময় বক্তারা বলেন, ১৯৯৭ সালে পেড়িখালী দাখিল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার পর একটি মাত্র টিনসেডে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করে আসছে। জরাজীর্ণ এই ভবনে পাঠদানের চরম ব্যহত হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন বক্তারা। বহু চেষ্টা করে বিগত ২৪ বছর পরে ৩ কোটি ৮৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে ৪ তলা বিশিষ্ট একটি ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হয়। যার ঠিকাদার ঝর্ণা এন্টারপ্রাইজ। ওই প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী মোংলা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ইকবাল হোসেন। ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান গত ইং ৮-০২-২০২১ তারিখ কাজ শুরু করে। যার মেয়াদকাল শেষ হয় আরও ৬ মাস পূর্বে। ওই প্রতিষ্ঠানের মেয়াদকাল শেষ হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট জেলার প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী এবং পেড়িখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম বাবুল ইকবাল হোসেনের সাথে দুর্ব্যবহার করেন বলে বক্তারা অভিযোগ করেন। তারা আরও জানান, নিন্মমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে কাজ শুরুর কয়েক দিনের মধ্যে কিছু মালামাল ছড়িয়ে ছিটিয়ে রেখে চম্পট দেয় ওই ঠিকাদার। এ বিষয়ে ঠিকাদার ইকবাল হোসেন এর সাথে তার মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, আমি ওই প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার নই। মূল ঠিকাদার আসলাম শেখ। তিনি ও ওই নির্মাণ কাজটি অন্যত্র হস্তান্তর করেছেন। শুধু শুধু চেয়ারম্যান আমাকে দোষারোপ করছেন। এ বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহারের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, উন্নয়নের প্রশ্নে কোন আপোষ নেই। কেউ অনিয়ম করলে তাকে ছাড় দেয়া হবে না। ##