বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
পঞ্চগড়ের নৌকাডুবিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৫, নিখোঁজ আরো ক্ষিপ্ত হয়ে ট্রফি ভাঙা সেই ইউএনওকে ঢাকায় বদলি প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী তিন ফসলি কৃষিজমি ধ্বংস করে কোন কিছু করা যাবে না বাংলাদেশ ও ভারতের মানুষের মধ্যে ঐতিহ্য, কৃষ্টি ও সংস্কৃতির সাদৃশ্যে নানা উৎসবে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ : ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ও নিয়োগের ক্ষেত্রে ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে : উপাচার্য শ্যামনগরের কাঁশিমাড়িতে বজ্রপাত প্রতিরোধে তিন কিলোমিটার রাস্তায় তালবীজ বপন রামপালে বিনামূল্যে চিকিৎসা পেলেন ৩ সহস্রাধিক রোগী  খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে রিসার্চ সোসাইটির আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা আমাদের সকলের দায়িত্ব : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী রামপাল তাপ বিদ্যুত কেন্দ্রের মালামালসহ ০৬ ডাকাত গ্রেফতার

রামপালে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে খালে বাঁধ দেয়ার অভিযোগ

রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ||
  • প্রকাশিত সময় মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৬ পড়েছেন

##   রামপাল উপজেলার হুড়কা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড সদস্য অনিন্দ্য মন্ডলের বিরুদ্ধে খালে বাঁধ দিয়ে আটকে রেখে মাছ চাষের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকারি খাল বাঁধ দিয়ে রাখার ফলে আমন আবাদ মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে এমন অভিযোগ এনে প্রতিকার চেয়ে উপজেলা প্রশাসন বরাবর অভিযোগ পত্র দাখিল করেছেন আমন চাষিরা। অভিযোগ পত্র পাওয়ার পর রামপাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে ব্যবস্থা নিতে বলেন। সহকারী কমিশনার শেখ সালাউদ্দিন দিপু সরেজমিনে তদন্ত করে রিপোর্ট দেওয়ার জন্য হুড়কা ইউনিয়ন তহশিলদারকে নির্দেশ দেন। তহশিলদার অ্যাডভোকেট শহিদুল ইসলাম গত ১ সেপ্টেম্বর সকালে সরেজমিনে গিয়ে গাজীখালী গ্রামের অংকুর খালে বাঁধ দেখে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। এরপর ১৭ দিন অতিবাহিত হলেও তদন্ত প্রতিবেদন আলোর মুখ দেখেনি বলে অভিযোগ করেন আমন চাষি আ. জব্বার, বাচ্চু শেখ, মনোজ কুমার। তারা বলেন আমন রোপণ মৌসুম শেষ হয়ে গেলে বাঁধ কেটে কি লাভ ?

এ বিষয়ে রামপাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজিবুল আলম কে অভিযোগের কপি দেখিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন আমরা ধরাবাহিকভাবে আটকে রাখা নদী, খালের বাঁধ অপসারণ ও অবৈধভাবে মিনি ড্রেজার দিয়ে বালি উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহন জোরদার করেছি। যেখানে এ ধরনের তথ্য পাওয়া যাচ্ছে সেখানেই অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু মোংলা ঘোষিয়াখালী ক্যানেলের নাব্যতা নিশ্চিত করতে আমরা অভিযান অব্যাহত রেখেছি। #

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu