বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:১৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
পঞ্চগড়ের নৌকাডুবিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৫, নিখোঁজ আরো ক্ষিপ্ত হয়ে ট্রফি ভাঙা সেই ইউএনওকে ঢাকায় বদলি প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী তিন ফসলি কৃষিজমি ধ্বংস করে কোন কিছু করা যাবে না বাংলাদেশ ও ভারতের মানুষের মধ্যে ঐতিহ্য, কৃষ্টি ও সংস্কৃতির সাদৃশ্যে নানা উৎসবে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ : ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ও নিয়োগের ক্ষেত্রে ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে : উপাচার্য শ্যামনগরের কাঁশিমাড়িতে বজ্রপাত প্রতিরোধে তিন কিলোমিটার রাস্তায় তালবীজ বপন রামপালে বিনামূল্যে চিকিৎসা পেলেন ৩ সহস্রাধিক রোগী  খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে রিসার্চ সোসাইটির আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা আমাদের সকলের দায়িত্ব : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী রামপাল তাপ বিদ্যুত কেন্দ্রের মালামালসহ ০৬ ডাকাত গ্রেফতার

ফরিদপুর সদর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদ

ফরিদপুর প্রতিনিধি।।
  • প্রকাশিত সময় রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৭১০ পড়েছেন

## ফরিদপুর সদর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও ম্যিথা সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন উদ্যোক্তা ওমর ফারুক।  শনিবার প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা জানিয়েছেন উদ্যোক্তা মোঃ ওমর ফারুক। তিনি বলেন, গত ৩০ শে আগস্ট একটি সংঘবদ্ধ চাদাবাজ চক্র দাবীকৃত চাদা না পেয়ে ভুইফোড় পত্রিকা দি ডেইলি ট্রাইবুন্যাল, দৈনিক অধিকরন, দৈনিক অধিকার, এসএম বাংলা টিভি, ম্যাজিক বাংলা টিভি অনলাইনসহ ফরিদপুর থেকে প্রকাশিত স্থানীয় দৈনিক বাঙ্গালী সময় পত্রিকায় “ইউপির ডিজিটাল সেন্টার উদ্যোক্তা ওমর ফারুকের নানা অনিয়ম” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। উক্ত সংবাদ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন দাবি করে তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন ফরিদপুর সদর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা মো: ওমর ফারুক। তিনি লিখিত বক্তব্যে জানান, ইউআইএসসি পরিচালনা কমিটির অনুমোদন সাপেক্ষে দিনের নির্দিষ্ট সময় জনগণের সেবা প্রদানের জন্য কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টার খোলা রেখে সেবা প্রদান করা হয়। প্রকাশিত সংবাদে চাদাবাজ চক্র জন্ম সনদ, মৃত্যু সনদ, নাগরিক সনদ, ওয়ারিশ সনদসহ বিভিন্ন সনদপত্র বাবদ সরকার নির্ধারিত ফি ছাড়াও অতিরিক্ত যে অর্থ নেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে যা সম্পুর্ন মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। ইউআইএসসি পরিচালনা কমিটি’র সার্বিক তত্ত্বাবধানে সরকার নির্ধারিত ফি দিয়েই জনগন সকল প্রকার সনদ গ্রহন করে থাকে। এ ছাড়াও সনদ দাতার সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড সদস্য কর্তৃক যাচাই বাছাই এর পর ঐ ওয়ার্ড সদস্যের প্রতিবেদন অনুযায়ী নির্ধারিত ফি নিয়েই ইউআইএসসি পরিচালনা কমিটি’র পূর্নাঙ্গ যাচাই বাছাইয়ের পর সনদপত্র প্রদান করা হয়। যেখানে সরকার নির্ধারিত ফির অতিরিক্ত অর্থ আদায় করার কোন সুযোগ নেই। প্রকাশিত সংবাদে ইচ্ছাকৃত ভুলের যে অভিযোগ আনা হয়েছে সেটিও মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। একজন সেবা গ্রহিতার সনদ পত্র প্রদানের সময় নিদৃষ্ট ওটিপি আসতে বিলম্বসহ সার্ভার জনিত নানা জটিলতার কারনে সেবা প্রদানে বিঘ্ন হয়। ফলে সেবা গ্রহিতাদের সেবা প্রদানে কিছুটা বিলম্ব হয়। লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা হিসেবে যোগদানের পর সরকারি পরিপত্র অনুযায়ী ইউআইএসসি পরিচালনা কমিটি’র সার্বিক তত্ত্বাবধানেই সততা ও সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করে আসছি। গত ২৮ শে আগস্ট সাংবাদিক পরিচয়ধারী জিল্লুর রহমান রাসেল ও তার সহযোগীরা ইউনিয়ন  ডিজিটাল সেন্টারে এসে নানা ধরনের বিভ্রান্তিকর মন্তব্য ও হুমকি প্রদান করেন। এসময় বিভিন্ন সনদপত্র বাবদ মিথ্যা অভিযোগ করে সংবাদ প্রকাশ করার হুমকি দিয়ে সংবাদ প্রকাশ না করার জন্য ৫০,০০০ টাকা চাঁদা দাবি করে। আমি তাদেরকে অর্থ দিতে অস্বীকার করায় আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে এমন মিথ্যা ও ভিত্তীহিন সংবাদ প্রকাশ করেছে যা হলুদ সাংবাদিকতার সামিল বলে আমি মনে করি। একই সাথে এই মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই এবং এই ষড়যন্ত্রকারী ও চাদাবাজদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পুলিশ ও প্রশাসনের প্রতি আহবান জানান। ##

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu