শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১২:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম
খুলনার সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসার কাছে কৃতজ্ঞ ও ঋনী :  মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক দেশের সব অনিবন্ধিত হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধের নির্দেশ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের, দ্রুত কার্যকরের দাবী পাইকগাছায় পূজা পরিষদের পৌর শাখা কমিটি গঠন খুলনায় বিএনপির ৮৯২ নেতাকর্মীর নামে মামলা : ২৯ জন জেল-হাজতে, ১২নারী নেতাকর্মীর জামিন কয়রার মহারাজপুর ইউনিয়নের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনা  ছাত্রলীগ-যুবলীগ ও পুলিশ তান্ডব চালিয়ে উল্টো মামলা দিয়ে বিএনপির নেতার্মীদের গ্রেফতার করছে : মনা পাইকগাছায় সারদা আশ্রমের উদ্যোগে শিক্ষা উপকরন বিতরন নগরীতে ইজিবাইক ও ব্যাটারিচালিত রিকশার লাইসেন্স প্রদানের দাবিতে সমাবেশ জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন খুলনা নগরীর অধিকাংশ অসহায় মানুষকে সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচীতে যুক্ত করা যায়নি

ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ১২মে : কে হচ্ছেন নতুন সভাপতি-সম্পাদক

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় বুধবার, ১১ মে, ২০২২
  • ৪৭ পড়েছেন

নিরঞ্জন মিত্র (নিরু),ফরিদপুর।।

দীর্ঘ ছয় বছর পর ১২মে বৃহস্পতিবার ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনকে ঘিরে শহরের রাজেন্দ্র কলেজের শহর ক্যাম্পাস মাঠে তৈরী করা হয়েছে বিশাল প্যান্ডেল ও নৌকা মঞ্চ। সম্মেলনের সব প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এখন শুধু হাট বাজার চায়ের দোকানের আড্ডা কিংবা চলতি পথের আলাপ আলোচনায় উঠে আসছে জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রসঙ্গ। সকলের মুখে মুখে একই প্রশ্ন কে হবেন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, এই নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন। নেতাকর্মীরাও উজ্জীবিত হয়ে উঠছেন যার যার পছন্দের নেতার সমর্থনে নানামুখী তৎপরতা। এদিকে সম্মেলনকে ঘিরে শহরের রাজবাড়ী রাস্তার মোড় থেকে ভাঙ্গা রাস্তার মোড় হয়ে আলীপুর ব্রিজ পার হয়ে রাজেন্দ্র কলেজ মাঠ পর্যন্ত শোভা পাচ্ছে ব্যানার, ফেস্টুন, বিলবোর্ড সহ মহাসড়কে তৈরি করা হয়েছে প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ টি তোরণ। এ ধরনের বর্ণিল সাজে সর্বপ্রথম সেজেছে ফরিদপুর রাজেন্দ্র কলেজের মাঠ।

জানা গেছে, জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ। সম্মেলন উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি। সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ডঃ আব্দুর রাজ্জাক এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) ফারুক খান এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান, কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ডা. দীপুমনি এমপি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ. ফ. ম. বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বি. এম. মোজাম্মেল, সাংগঠনিক সম্পাদক এস.এম. কামাল, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ডক্টর আবদুস সোবহান গোলাপ এমপি, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মোঃ সিদ্দিকুর রহমান, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য আনোয়ার হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য শাহাবুদ্দিন ফরাজী, কার্যনির্বাহী সদস্য ইকবাল হোসেন অপু এমপি, সৈয়দ আব্দুল আওয়াল শামীম, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম এমপি। ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডভোকেট সুবল চন্দ্র সাহা সভাপতিত্বে, এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মাসুদ এর সঞ্চালনায় সম্মেলন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেবেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

দলের নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৬ সালে সর্বশেষ ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেই সময় থেকে সুবল চন্দ্র সাহা সভাপতি ও সৈয়দ মাসুদ সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। গত ৬বছরের কমিটির কার্যক্রম নিয়ে রয়েছে নানান অভিযোগ, অনুযোগ ও সংগঠনের নীতি ও আদর্শ পরিপন্থি অনেকের কারবারের বিষয়ে উঠে এসেছে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায়। এবার কে হচ্ছেন সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক তা নিয়ে চলছে জল্পনা ও কল্পনা। কাউন্সিলের মাধ্যমে নেতা নির্বাচিত হবে না কেন্দ্র নির্ধারণ করবে তা নিয়ে চলছে বিতর্ক। তবে দলের নেতাকর্মীরা বলছেন, দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, সভাপতি পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তাদের মধ্যে রয়েছেন, আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিপুল ঘোষ, জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট সুবল চন্দ্র সাহা, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মাসুদ হোসেন, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট শামসুল হক ভোলা মাস্টার, আরেক সহ-সভাপতি শামীম হক, যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ফারুক হোসেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির সাবেক সদস্য সাইফুল আহাদ সেলিম ও বোয়ালমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম.এম মোশাররফ হোসেন মুশা মিয়ার নাম শোনা যাচ্ছে। অপরদিকে, সাধারণ সম্পাদক পদে শোনা যাচ্ছে বর্তমান জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ঝর্ণা হাসান, ফরিদপুর পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক অমিতাভ বোস, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক অনিমেষ রায়, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির অর্থ ও পরিকল্পনা উপ-পরিষদের সদস্য কামরুজ্জামান কাফি, আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ লিয়াকত হোসেন, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক জিয়াউল হাসান মিঠু এবং জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শওকত আলী জাহিদের নাম জোসোরে শোনা যাচ্ছে।

সম্মেলন নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট সুবল চন্দ্র সাহা বলেন, সম্মেলনের সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। সম্মেলনের মাঠে ১২ হাজার নেতা কর্মীর চেয়ারে বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে, তবে জনসমাগম ১৮ থেকে ২০ হাজার হতে পারে। আমরা শান্তিপূর্ণভাবে সম্মেলন শেষ করতে চাই। দলের প্রতি যারা দীর্ঘদিন ধরে আনুগত্য দেখিয়েছেন তাদেরকে দিয়েই আগামীদিনের কমিটি হবে এমনটিই প্রত্যাশা করি। আগামী দিনের নেতৃত্বে যারাই আসুক, আমরা প্রত্যাশা করি তারা চাঁদাবাজ হবেন না, ক্ষমতার অপব্যবহার করবেন না। আমরা স্বচ্ছ একটি জেলা কমিটি চাই। যে কমিটিতে কোন বিতর্কিত ব্যক্তি, কোন হাইব্রিড বা অনুপ্রবেশকারীর স্থান মেনে নেব না। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মাসুদ হোসেন জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেটা ভালো মনে করবে সেই সিদ্ধান্ত আমরা মেনে নেব। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সম্মেলন সফল করতে কাজ করছেন। নৌকার পক্ষে ছিলাম, আছি এবং মৃত্যু পর্যন্ত থাকব। তবে কে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকসহ নতুন নেতা কারা হচ্ছেন নাকি পুরাতনরাই থেকে যাচ্ছেন সে বিষয়ে জানতে বৃহষ্পতিবার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। #

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu