ঢাকা ০৬:৫৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা সমাপনী উৎসব শুরু

###   খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮ ব্যাচের তিন দিনব্যাপী শিক্ষা সমাপনী উৎসবের উদ্বোধন করা হয়েছে। সকাল ১০.৩০ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের হাদী চত্বরে প্রধান অতিথি হিসেবে বেলুন, ফেস্টুন ও পায়রা উড়িয়ে এবং ফিতা কেটে শিক্ষা সমাপনী উৎসবের উদ্বোধন করেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন।  এর আগে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি বলেন, শিক্ষা সমাপনীকে সফলতা দিবস বলাও চলে। কেননা দীর্ঘ ১৬ বছর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষালাভের পর এখানে আসতে হয়। এটি একটি সাফল্য। শিক্ষা সমাপনীর মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সমাপ্তি ঘটলেও জ্ঞান চর্চা যেনো থেমে না থাকে। দেশ ও জাতির উন্নয়নে নিবেদিত হতে হবে। ১৮ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের প্রস্ফুটিত গোলাপের সাথে তুলনা করে উপাচার্য বলেন, গোলাপ যেমন অন্যের জন্য সুবাস ছড়ায়, তেমনি তোমাদেরও কর্ম ও দক্ষতার মধ্য দিয়ে দেশ ও জাতির জন্য নিজেদের বিলিয়ে দিতে হবে। দেশের উন্নয়নে অবদান রাখতে হবে। তোমাদের যে পরিবর্তন, গুণাবলী এসব দেখে যাতে লোকজন জানতে পারে তোমরা প্রস্ফুটিত গোলাপ।
তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে শিক্ষা সমাপনী উৎসবের সাথে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য, সুনাম ও ভাবমূর্তির দিকেও লক্ষ্য রাখার পরামর্শ দেন এবং শিক্ষা সমাপনী উৎসবের ব্যাপারে উচ্চ আদালতের নিদের্শনা মেনে চলার আহ্বান জানান। একই সাথে তিনি ১৮ ব্যাচের এ আয়োজনের সাফল্য কামনা করেন। এসময় রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস, ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর মোঃ শরীফ হাসান লিমনসহ অন্যান্য শিক্ষক, কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।  ##

Tag :
About Author Information

Banglar Dinkal

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা সমাপনী উৎসব শুরু

প্রকাশিত সময় ০১:৫৪:১৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ অক্টোবর ২০২২

###   খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮ ব্যাচের তিন দিনব্যাপী শিক্ষা সমাপনী উৎসবের উদ্বোধন করা হয়েছে। সকাল ১০.৩০ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের হাদী চত্বরে প্রধান অতিথি হিসেবে বেলুন, ফেস্টুন ও পায়রা উড়িয়ে এবং ফিতা কেটে শিক্ষা সমাপনী উৎসবের উদ্বোধন করেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন।  এর আগে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি বলেন, শিক্ষা সমাপনীকে সফলতা দিবস বলাও চলে। কেননা দীর্ঘ ১৬ বছর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষালাভের পর এখানে আসতে হয়। এটি একটি সাফল্য। শিক্ষা সমাপনীর মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সমাপ্তি ঘটলেও জ্ঞান চর্চা যেনো থেমে না থাকে। দেশ ও জাতির উন্নয়নে নিবেদিত হতে হবে। ১৮ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের প্রস্ফুটিত গোলাপের সাথে তুলনা করে উপাচার্য বলেন, গোলাপ যেমন অন্যের জন্য সুবাস ছড়ায়, তেমনি তোমাদেরও কর্ম ও দক্ষতার মধ্য দিয়ে দেশ ও জাতির জন্য নিজেদের বিলিয়ে দিতে হবে। দেশের উন্নয়নে অবদান রাখতে হবে। তোমাদের যে পরিবর্তন, গুণাবলী এসব দেখে যাতে লোকজন জানতে পারে তোমরা প্রস্ফুটিত গোলাপ।
তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে শিক্ষা সমাপনী উৎসবের সাথে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য, সুনাম ও ভাবমূর্তির দিকেও লক্ষ্য রাখার পরামর্শ দেন এবং শিক্ষা সমাপনী উৎসবের ব্যাপারে উচ্চ আদালতের নিদের্শনা মেনে চলার আহ্বান জানান। একই সাথে তিনি ১৮ ব্যাচের এ আয়োজনের সাফল্য কামনা করেন। এসময় রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস, ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর মোঃ শরীফ হাসান লিমনসহ অন্যান্য শিক্ষক, কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।  ##