খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে শিক্ষা ও গবেষনায় আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করতে চাই-ভাইস-চ্যান্সেলর

54

খুলনা ব্যুরো।।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনিযুক্ত ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়কে শিক্ষা ও গবেষনায় আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করতে চান। সেজন্য বিশ্ববিদ্যারয়ের প্রতিটি ক্ষেত্রে দক্ষতা-যোগতা অর্জন ও অভিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে কাজ করবেন। অনিয়ম-র্দূনীতির বিপরীতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি প্রশাসন গড়ে তুলে সততা, জ্ঞান-বিজ্ঞান ও গবেষনাসহ মানবহিতৈষী র্কাযক্রমেও বিশ্বমানের ক্ষেত্র হিসেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় যেন র্শীষ পর্যায়ে রূপান্তরিত হয়ে দেশের গৌরবময় প্রতিষ্ঠান হতে পারে তার লক্ষ্যেই নিবেদিত থাকবেন। তিনি শনিবার সকালে বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন।বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সাংবাদিক লিয়াকত আলী মিলনায়নে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মতবিনিময় সভার শুরুতে নবনিযুক্ত ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি মহান স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা ও স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ভাষা আন্দোলন ও মহান মুক্তিযুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী জাতির শ্রেষ্ঠসন্তান, পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট কালরাতে বঙ্গবন্ধুর সাথে পরিবারের নিহত সদস্যদের এবং ৩ নভেম্বর জেলখানায় নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার জাতীয় চার নেতা ও নব্বইয়ের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের শহিদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। একই সাথে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী সকল রাজনীতিক, বুদ্ধিজীবী, পেশাজীবী, বিভিন্ন সংগঠনসহ আপামর সকল শ্রেণি-পেশার মানুষদের এবং বিশেষ করে সাংবাদিকদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

এ সময় তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে শিক্ষা ও গবেষনায় আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করতে অভিষ্ট লক্ষ্যে পৌছাতে তার পরিকল্পনা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দেশের মধ্যে একমাত্র ছাত্ররাজনীতিমুক্ত, সেশনজটমুক্ত, শতভাগ একাডেমিক ক্যালেন্ডার মেনে চলা বিশ্ববিদ্যালয়। তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কিছু গবেষণার সাফল্য, অতিসম্প্রতি গৃহীত পদক্ষেপ ও প্রাথমিক পরিকল্পনা সমূহ সাংবাদিকদের তিনি অবহিত করেন।

ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন বলেন, বিগত কয়েক মাস এ বিশ্ববিদ্যালয়ে পূর্ণাঙ্গ ভাইস-চ্যান্সেলর না থাকায় দায়িত্বভার গ্রহণের দিন থেকেই জমে থাকা দাপ্তরিক, প্রশাসনিক ও একাডেমিক কাজ করতে হয়েছে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটি উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান একক চেষ্টায় সমৃদ্ধিলাভ করতে পারে না। এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সাথে সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরের নানান শ্রেণি-পেশার মানুষ, সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের অবদান থাকে। সম্মিলিত প্রচেষ্টাই একটি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান সাফল্যের পথে এগিয়ে যায়। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ও ভাবমূর্তি বৃদ্ধিতে, দেশ-বিদেশে তার সুনাম, সম্মান ও সাফল্যের সংবাদ ছড়িয়ে দিতে সাংবাদিকবৃন্দ অনন্য ভূমিকা পালন করে থাকেন।খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা থেকে আপনারা যথাযথভাবে সে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। এজন্য আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আপনাদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা জানাই। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে উৎকর্ষের অভিলক্ষ্যে এগিয়ে নিতে সব সময় গনমাধ্যমের পরামর্শ, সুচিন্তিত মতামত ও ভাবনা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে পুনর্গঠনে দেশকে পরিকল্পিতভাবে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিতে প্রথম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রণয়ন করেন। এই প্রথম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনাতেই খুলনা বিভাগে একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণের কথা উল্লেখ ছিলো। কিন্তু পঁচাত্তরের পনেরই আগস্ট জাতির পিতা সপরিবারে নৃশংসভাবে নিহত হওয়ায় এ উদ্যোগ আর আলোর মুখ দেখেনি। পরবর্তীতে বৃহত্তর খুলনার আপামর মানুষ বিভাগীয় শহর খুলনাতেই এ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার নজিরবিহীন আন্দোলন-সংগ্রাম গড়ে তোলেন এবং তারই ফসল আজকের এই বিশ্ববিদ্যালয়। সুতরাং খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠার ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর নাম প্রথমেই আমাদের স্মরণ করতে হয় এবং খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার স্বপ্নদ্রষ্টা হিসেবে তাঁর নাম চির অম্লান হয়ে থাকবে।

ভাইস-চ্যান্সেলর আরও বলেন, ১৯৯০-৯১ শিক্ষাবর্ষে ৪টি ডিসিপ্লিনে ৮০ জন ছাত্র-ছাত্রী নিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু। বর্তমানে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৮টি স্কুল(অনুষদ)-এর অধীনে ২৯টি ডিসিপ্লিনে(বিভাগ) শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিয়মিত ব্যাচেলর ডিগ্রি, ব্যাচেলর অব অনার্স ডিগ্রি, মাস্টার্স ডিগ্রি, এম ফিল এবং পিএইচডি প্রদান করা হয়। বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকের সংখ্যা ৫০৭, শিক্ষার্থীরা সংখ্যা প্রায় ৬ হাজার। বিদেশি শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৯। কর্মকর্তার সংখ্যা ৩০৭ ও কর্মচারির সংখ্যা ৪০৭।
তিনি বলেন, উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি স্বাতন্ত্র্য বৈশিষ্ট্যের জায়গা রয়েছে। তাহলো দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টির পাশাপাশি গবেষণা। এই গবেষণাই একটি দেশ, জাতি, সমাজ ও এলাকার কাঙ্খিত উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারে। উন্নত বিশ্বের আর্থ-সামাজিক ও প্রযুক্তিগত সমৃদ্ধির মূলে কাজ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা ও দিকনির্দেশনা। করোনা মহামারির টিকা বিশ্বের কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের নিরন্তর গবেষণার মাধ্যমে উদ্ভাবন হয়েছে। এধরনের সংকটের সমাধান ও সম্ভাবনার বিকাশে আগামীতে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ও অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বর্তমান সরকারের ধারাবাহিক প্রচেষ্টায় উচ্চশিক্ষার বিস্তারে সাফল্য অনেক। কিন্তু উচ্চশিক্ষার গুণগত মান নিয়ে এখন সরকারসহ সবক্ষেত্রেই আলোচনা হচ্ছে। শিক্ষা যেন সনদ কেন্দ্রিক না হয়ে জ্ঞান কেন্দ্রিক হয়, জ্ঞানের প্রসার ও উদ্ভাবন ভিত্তিক হয় এটাই আমাদের কাম্য। উচ্চশিক্ষায় গুণগতমান অর্জন ছাড়া কাঙ্খিত উন্নয়ন সম্ভব নয়-এ বাস্তবতা আমরা উপলব্ধি করছি এবং সেই লক্ষ্যেই সরকারের পরিকল্পনা প্রসারিত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জন করেছে এর নেপথ্যশক্তি হচ্ছে শিক্ষা। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে শিক্ষাক্ষেত্রে সূচিত অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকলে শিক্ষিত জাতি গঠনের অভীষ্টলক্ষ্য পূরণ হবে, সাথে সাথে দেশ সমৃদ্ধির পথে আরও এগিয়ে যাবে এবং বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে। তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন অভিযাত্রার পরিকল্পনা এবং গৃহীত পদক্ষেপ বাস্তবায়নে সাংবাদিকদের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে এবং শৃঙ্খলা ধরে রাখতে বিভিন্ন সুপারিশ তুলে ধরা হয়।এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ভাইস-চ্যান্সেলর বলেন, আমি নিশ্চয়তা দিয়ে বলতে পারি আমার মেয়াদে কোন শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রতিহিংসার শিকার হবে না এবং কোন অনিয়ম-দুর্নীতি আমাকে স্পর্শ করতে পারবে না।একটি স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতামূলক প্রশাসন গড়ে তুলবো। আমি সবার সহযোগিতা নিয়েই বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করতে চাই।

মতবিনিময় সভায় ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস, ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ, ছাত্রবিষয়ক পরিচালক প্রফেসর শরীফ হাসান লিমন এবং খুলনার প্রিন্ট ও ইলেকট্রোনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ##

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here