বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
পঞ্চগড়ের নৌকাডুবিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৫, নিখোঁজ আরো ক্ষিপ্ত হয়ে ট্রফি ভাঙা সেই ইউএনওকে ঢাকায় বদলি প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী তিন ফসলি কৃষিজমি ধ্বংস করে কোন কিছু করা যাবে না বাংলাদেশ ও ভারতের মানুষের মধ্যে ঐতিহ্য, কৃষ্টি ও সংস্কৃতির সাদৃশ্যে নানা উৎসবে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ : ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ও নিয়োগের ক্ষেত্রে ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে : উপাচার্য শ্যামনগরের কাঁশিমাড়িতে বজ্রপাত প্রতিরোধে তিন কিলোমিটার রাস্তায় তালবীজ বপন রামপালে বিনামূল্যে চিকিৎসা পেলেন ৩ সহস্রাধিক রোগী  খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে রিসার্চ সোসাইটির আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা আমাদের সকলের দায়িত্ব : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী রামপাল তাপ বিদ্যুত কেন্দ্রের মালামালসহ ০৬ ডাকাত গ্রেফতার

খুলনা বিএমএ নির্বাচনে পেশীশক্তি ও সহিংসতার আশংকা : ক্ষমতার লড়াইয়ে মুখোমুখি স্বাচিপ নেতৃত্ব, জয়ী হতে জামাত-বিএনপির কাছে ধর্ণা

অফিস ডেক্স।।
  • প্রকাশিত সময় বৃহস্পতিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১১ পড়েছেন

##   দীর্ঘ সাত বছর পর আজ ১৫সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) খুলনা শাখার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ক্ষমতার দ্বন্দ্ব, নেতৃত্ব টিকিয়ে রাখা, ব্যক্তি কেন্দ্রিক স্বার্থসিদ্ধি, সরকারী ও রাজনৈতিক প্রভাব বলয়ের অনুকম্পা প্রাপ্তি এবং আগামী দিনের ক্ষমতা কেন্দ্রিক শক্তি অর্জনের প্রত্যাশায় এবারের নির্বাচন চিকিৎসক সমাজের মধ্যে বিশেষ গুরুত্বপূর্ন হয়ে উঠেছে। নির্বাচনকে ঘিরে ইতিমধ্যেই নানামুখী প্রচার-প্রচারনা, স্বার্থ সংশ্লিষ্ঠ প্রপোগন্ডা, কুৎসা রটনাসহ নানাবিধ কর্মকান্ডে ভোট গ্রহনের আগমূহূর্তে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে নগরীর স্বাস্থ্যসেবা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্টানগুলো এবং ভোটাররা। এবারের র্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিী দুই প্যানেলই স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সমর্থিত দাবী করে তাদের প্রচার প্রচারনায় রয়েছে। বুধবার দুই প্যানেলই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নির্বাচনে ক্ষমতার প্রভাব বিস্তার, সংহিসতা, পেশীশক্তি ও অবৈধভাবে অর্থের ব্যবহারের আশংকা প্রকাশ করেছেন। স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সাধারন সম্পাদক ডা: মেহেদী নেওয়াজের নেতৃত্বাধীন হামিদ আজগর-মেহেদী নেওয়াজ প্যানেল বুধবার খুলনা প্রেসক্রাবে সংবাদ সম্মেলন করে তাদের আশংকা প্রকাশ করেন। দর্শন যার যার-বিএমএ সবার শ্রোগানে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এই প্যানেলের পক্ষে কৃত্য পেশাভিত্তিক মন্ত্রনালয় গঠনপূর্বক আন্ত;ক্যাডার বৈষম্য নিরসন, স্বাস্থ্য প্রশাসনে চিকিৎসকদের নিয়োগ ও পদসংখ্যা বৃদ্ধি, যুগোপোযোগী স্বাস্থ্যনীতি ও চিকিৎসা সুরক্সা আইন প্রনয়নসহ ২৭দফা নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে সভাপতি পদপ্রার্থী ডা: হামিদ আজগর অসুস্থ্য থাকায় অনুপোস্থিত থাকলেও সাধারন সম্পাদক প্রার্থী ডা: মেহেদী নেওয়াজ লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। এ সময় প্যানেলের পক্ষে স্বাচিপ সভাপতি ডা: সামছুল আহসান মাসুম, ডা: মোল্রা হারুনুর রশিদ, ডা: বঙ্গকমল বসু, ডা: গাজী মিজানুর রহমান, ডা: শৈলেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, ডা: তুষার আলমসহ বিভি্ন্ন পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীবৃন্দ ও সাধারন চিকিৎসকরা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সাধারন সম্পাদক প্রার্থী ডা: মেহেদী নেওয়াজ বলেন, তাদের প্যানেল মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষের সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সমর্থিত প্যানেল। তারা দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসকদের স্বার্থে কাজ করে যাচ্ছেন। তাদের সাথে স্বাচিপের সভাপতিসহ স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ রয়েছেন। তারা গত ১২সেপ্টেম্বর মতবিনিময় সভা করে সমর্থনের কথা ঘোষনা করে গেছেন। সেই সবায় মহানগর আওয়ামীলীগের সবাপতি সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকসহ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া তারা দীর্ঘদিন ধরে সাধারণ চিকিৎসৎদের জন্য আন্দোলন-সংগ্রাম করছেন। সে কারনে তারা মনে করেন সাধারণ চিকিৎসক ভোটাররা তাদেরকেই ভোট দিয়ে জয়ী করবেন। কিন্ত তাদের প্যানেলেও বিএনপি-জামায়াত সমর্থক চিকিৎসক সংগঠন ড্যাব-এর সমর্থকরা রয়েছেন। তবে সেটি নির্বাচনী কৌশল বলে উল্লেখ করেন। এজন্য তারা দর্শন যার যার-বিএমএ সবার শ্রোগান নিয়ে নির্বাচনের মাঠে নেমেছেন। তাদের প্যানেল বিজয়ী হজবেন বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।

অন্যদিকে, নগরীর একটি অভিজাত হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে ডা: বাহারুল আলমের নেতৃত্বাধীন প্যানেলের ইশতেহার ঘোষনা করা হয়। এ সংবাদ সম্মেলনেও বিএমএ নির্বাচনে বহি:শক্তির হস্তক্ষেপ, পেশীশক্তির ব্যবহার ও সহিংসতার আশংকা ব্যক্ত করে পুলিশ, প্রশাসন ও গনমাধ্যম প্রতিনিধিদের সক্রিয় দৃষ্টির আহবান জানানো হয়। স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় আমলাতন্ত্রের নির্যাতন ও দাসত্বের শৃঙ্খল ভেঙে নবীন-প্রবীণ মেধাবীরাই লড়বো শ্লোগানে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এই প্যানেলের পক্ষে পেমা যার,মন্ত্রনালয় তার-এই আলোকে কৃত্য পেশাভিত্তিক মন্ত্রনালয় প্রতিষ্টা, আমলাতন্ত্র সৃষ্টি চিকিৎসক বেকারত্ব দুর করা, বেতন, ক্ষমতা ও সুবিধাপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে আন্ত;ক্যাডার বৈষম্য দুর করা, চিকিৎসকদের কর্মস্থলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাসহ ১৮দফা নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে সভাপতি পদপ্রার্থী ডা: বাহারুল আলম লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। এ সময় ডা: বাহারুল আলম-ডা: জিল্লুর রহমান তরুন প্যানেলের বিভিন্ন পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীরা ও সাধারন চিকিৎসকরা উপস্থিত ছিলেণ। এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ডা: বাহারুল আলম বলেন, তাদের প্যানেল মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষের সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সমর্থিত প্যানেল। তারা দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসকদের স্বার্থে কাজ করে যাচ্ছেন। সে কারনে তারা মনে করেন সাধার চিকিৎসক ভোটাররা তাদেরকেই ভোট দিয়ে জয়ী করবেন। কিন্ত তাদের প্যানেলেও বিএনপি-জামায়াত সমর্থক চিকিৎসক সংগঠন ড্যাব-এর সমর্থকরা রয়েছেন। তবে সেটি নির্বাচনে বিজয়ী হতে কৌশল মাত্র বলে উল্লেখ করেন। তবে সাধারন চিকিৎসকদের অনেকেই নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, দুই প্যানেলই স্বাচিপের সর্থিত বলে প্রচার প্রচারনা করলেও সবাই ক্ষমতা লড়াইয়ে জিততে ও নির্বাচনে বিজয়ী হতে জামায়াত-বিএনপির সাথে হাত মিলিয়েছেন। এখানে আদর্শ ও চেতনা তেমন কোন বিবেচনায় থাকছে না।

বিএমএ সূত্রে জানা গেছে, ১৫সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) খুলনা শাখার নির্বাচনে মোট ভোটার রয়েছেন ২হাজার ১৫০জন। বিএমএ’র নির্বাহী কমিটির ২৪টি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মোট ৪৯জন প্রার্থী। ১৫সেপ্টেম্বর বিএমএ ভবন মিলনায়তনে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে।

বিএমএ সূত্র আরও জানায়, ২০১৫ সালে বিএমএ’র সবশেষ দ্বিবার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সে নির্বাচনে ডা: বাহারুল আলম সভাপতি ও ডা: মেহেদী নেওয়াজ সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন। কিন্তু কমিটির মেয়াদ ২০১৭ সালে উত্তীর্ণ হয়ে গেলেও গত ৫বছরে নির্বাচন করতে পারেনি বর্তমান কমিটি। অবশেষে ১৫ সেপ্টেম্বর খুলনা বিএমএর নির্বাচনের তারিখ নির্ধারন করা হয়। এবারের নির্বাচনে বর্তমান কমিটির সভাপতি সভাপতি ডা: বাহারুল আলমের নেতৃত্বে বাহার-তরুন পরিষদ এবং সাধারণ সম্পাদক ডা: মেহেদী নেওয়াজের নেতৃত্বে হামিদ আজগর-মেহেদী প্যানেল পৃথকভাবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন।দুটি প্যানেলের নেতৃত্বদানকারীরা স্বাধীনতার চেতনায় গড়ে ওঠা চিকিৎসকদের পেশাজীবি সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের নেতা। বিএমএ’র ২৪টি পদে এই দুই প্যানেলের ৪৮জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।উভয় প্যানেলই তারা নিজেদেরকে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ সমর্থিত বলে প্রচার করছে। এর বাইরে সহসভাপতি পদে ডা: মামুনুর রহমান স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন।

ডা: বাহারুল আলমের নেতৃত্বাধীন প্যানেলের সভাপতি পদে ডা: বাহারুল আলম ও  সাধারণ সম্পাদক পদে ডা: জিল্লুর রহমান তরুন। এ প্যানেলের অন্য প্রার্থীরা হলো-সহসভাপতি খুলনা মেডিকেল কলেজের সাবেক পরিচালক ডা: এটিএম মঞ্জুর মোরশেদ, ডা: দিদারুল আলম শাহীন, ও ডা: শেখ আবু সুফিয়ান রুস্তম, কোষাধ্যক্ষ পদে ডা: প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস, যুগ্মসাধারন সম্পাদক ডা: নিয়াজ মুস্তাফি শফি, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা: সুমন রায়, বিজ্হান বিষয়ক সম্পাদক ডা: দেবনাথ তালুকদার রনি, দপ্তর সম্পাদক ডা: অনল রায়, প্রচার ও জনসংযোগ সম্পাদক ডা: সাইফুল্লাহ মানসুর, সাংস্কৃতিক ও আপ্যায়ন সম্পাদক ডা: সোহানা সেলিম, সমাজ কল্যান সম্পাদক ডা: ফিরোজ হাসান, গ্রন্তাগার ও প্রকাশনা সম্পাদক ডা: বাপ্পারাজ দত্ত, সদস্য পদে অধ্যাপক ডা: ধীরাজ মোহন বিশ্বাস, ডা: হিমেল সাহা, ডা: নিরুপম মন্ডল, ডা: কমলেশ সাহা, ডা: উপানন্দ রায়, ডা: মিথুন কুমার পাল, ডা: মো: ফয়সাল আলম, ডা: আওরঙ্গজেব প্রিন্স, ডা: মো: মেহেদী হাসান ও ডা: প্রীতম স্বাক্ষর চক্রবর্তী। অন্যদিকে, ডা: মেহেদী নেওয়াজের নেতৃত্বাধীন প্যানেলের সভাপতি পদে অধ্যাপক ডা: কাজী হামিদ আজগর ও সাধারন সম্পাদক পদে ডা: মেহেদী নেওয়াজ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই প্যানেলের অন্যান্য পদে প্রার্থীরা হলো-সহসভাপতি স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ খুলনার সভাপতি ডা: এসএম সামছুল আহসান মাসুম, বিপিএমপিএ খুলনার সভাপতি ডা: গাজী মিজানুর রহমান, ও ডা: মোল্রা হারুনুর রশীদ, কোষাধ্যক্ষ পদে ডা: মো: কুতুব উদ্দিন মল্লিক, যুগ্মসাধারন সম্পাদক অধ্যাপক ডা: বঙ্গকমল বসু, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা: মো: ইউনুচ উজ্জামান খান তারিম, বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক ডা: উৎপল কুমার চন্দ, দপ্তর সম্পাদক ডা: এস.এম.তুষার আলম, প্রচার ও জনসংযোগ সম্পাদক ডা: শৈলেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, সাংস্কৃতিক ও আপ্যায়ন সম্পাদক ডা: মো: শহিদুল ইসলাম মুকুল, সমাজ কল্যান সম্পাদক ডা: মো: মহিবুল হাসান খান লিংকন, গ্রন্তাগার ও প্রকাশনা সম্পাদক ডা: পলাশ ‍ুকমার দে, কার্যকরী সদস্য পদে অধ্যাপক ডা: পরিতোষ ‍কুমার রায়চৌধুরী, ডা: কাজী আবু রাশেদ, ডা: প্রীতিশ তরফদার, ডা: প্রকাশ চন্দ্র দেবনাথ, ডা: চম্পক রায়, ডা: পার্থ প্রতীম দেবনাথ, ডা: ডলি হালদার, ডা: মো: মেহেদী হাসান সৈকত, ডা: মো: রকিবুল ইসলাম ও ডা: ফিরোজ আহমেদ।

এদিকে, খুলনায় বিএমএ’র নির্বাচনে ভোটারদের মধ্যে একটা বড় অংশ বিএনপি-জামায়াত সমর্থক চিকিৎসক রয়েছেন।এবারের নির্বাচনে বোট কারচুপি, সহিংতা ও রাজনৈতিক শক্তির প্রভাবের আশংকায় বিএনপি-জামায়াত সমর্থক সংগঠন ড্যাব নির্বাচনে অংশগ্রহন করেনি। সেজন্য তাদের সমর্থিত ভোটাররা জয়-পরাজয়ে বিশেষ ভুমিকা রাখবে বলে সবাই মনে করছেন।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপি সমর্থক একাধিক চিকিৎসক জানিয়েছেন,জাতীয়ভাবে বিএনপি জোট যেহেতু আওয়ামীলীগ সরকারের অধীনে সুষ্ঠ নির্বাচনে হওয়ার কোন সম্ভাবনা না থাকায় কোন নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না। সে কারনে খুলনা বিএমএ’র নির্বাচনেও তারা কোন প্রার্থী দেয়নি ও প্যানেল ঘোষনা করেনি। তবে ভোট দেয়া না দেয়ার বিষয়টি প্রত্যেকের ভিন্ন নিজস্ব মতামত রয়েছে। এখানে আমাদের সংগঠন বা দলগত কোন সিদ্ধান্ত নেই। আমাদের বোটাররা ইচ্ছা করলে বোট দিতে পারবেন আবার ইচ্ছে করলে নাও দিতে পারবেন। আমরা কাউকেই এ ব্যাপারে সমর্থন দিচ্ছি না।

খুলনা বিএমএ’র নির্বাচন সুষ্ঠভাবে পরিচালনার জন্য ডা: খসরুল আলম মল্লিককে চেয়ারম্যান ও ডা: চন্দন কুমার সাহা, এসএম. খালেদুজ্জামান, ডা: সাখাওয়াত আাল-দীন অমিতকে সদস্য করে একটি শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়েছে।এবারের নির্বাচনে কারা বিজয়ী হন সেটা বৃহষ্পতিবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটারদের দেয়া রায়ের মাধ্যমেই নির্ধারিত হবে। ##

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu