শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
শাশুড়ির অনৈতিক সম্পর্কে বাঁধা দেওয়ায় শিশুসন্তানসহ গৃহবধুকে নির্যাতন; মামলা তুলে না নিলে হত্যার হুমকী তেরখাদায় জাতির পিতার ম্যুরাল ‘বঙ্গবন্ধু স্টেট ম্যান অব দ্য সেঞ্চুরি’ এর উদ্বোধন কয়রায় ট্রিপল মার্ডারের নেপথ্যে ছিলো অবৈধ সম্পর্ক ও প্রতারণামূলক আর্থিক লেনদেন ভারত সরকারের উপহারের লাইফ সার্পোট এ্যাম্বুলেন্স এলো খুলনা ডায়াবেটিক হাসপাতালে বাগেরহাটে সরকারী স্কুলের সভাপতির বিরুদ্ধে ১০লাখ টাকার গাছ কেটে আত্নসাতের অভিযোগ, শাস্তির দাবী দূর্ঘটনারোধে খুলনা মহানগরীর সড়ক ও ট্রাফিক ব্যবস্থা এবং বাস্তবতা শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত সুশাসন প্রতিষ্ঠায় গণমাধ্যমের ভূমিকা শীর্ষক সেমিনারে সাংবাদিকদের নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের আহবান সপ্তাহ ব্যাপী শীতবন্ত্র বিতরণ; প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার ভিত্তিক প্রকল্প রামপাল পাওয়ার প্লান্ট বহুমুখি সামাজিক কাজ করছে শীতের সকালে সীমান্তের হাজারো মুখে ফুঠলো উষ্ণ হাসি ওমিক্রন প্রতিরোধে জনসচেতনতায় তরুণ সমাজকে এগিয়ে আসার আহবান

খুলনায় সোনালী ব্যাংকের ৫কোটি টাকা আত্নসাত মামলায এজিএমসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ২৫ পড়েছেন

ডেক্স রিপোর্ট ।।

খুলনায় যোগসাজসে সোনালী ব্যাংকের পাঁচ কোটি ২৮ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুদকের মামলায় ব্যাংকের এজিএমসহ চারজনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ও মালামাল ক্রোকের আদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার(৩০ নভেম্বর) আদালতের বিচারক মো. শহিদুল ইসলাম এই আদেশ দেন।মামলার আসামিরা হলেন-সোনালী ব্যাংক স্যার ইকবাল রোড শাখার তৎকালীন এজিএম বর্তমানে জিএম অফিসে সংযুক্ত সুজিত কুমার মন্ডল, গোডাউন কিপার ব্যাংক কর্মকর্তা নূরুল আমিন, সৌরভ ট্রেডাসের মিতা ভট্টাচার্য ও তার স্বামী সুজিত কুমার ভট্টাচার্য। মিতা ভট্টাচার্য দৌলতপুর থানা মহিলা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী।

দুদকের আইনজীবী খন্দকার মুজিবর রহমান জানান, সোনালী ব্যাংক স্যার ইকবাল রোড শাখার এজিএম থাকাকালে খুলনার দৌলতপুরের সৌরভ ট্রেডার্স নামে এক পাট রপ্তানিকারককে এই টাকা ঋণ প্রদান করে ব্যাংক। গোডাউনে পাটের বিপরীতে এই টাকা দেওয়া হলেও দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক মোশারেফ হোসেন তদন্তকালে গোডাউনে কোনো পাট পাননি। এ ব্যাপারে তদন্ত শেষ করে সম্প্রতি দুদকের তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে ব্যাংকের দুই কর্মকর্তাসহ চারজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন।ধার্যকৃত তিন তারিখ পার হয়ে গেলেও কেউ আদালতে জামিনের আবেদন করেননি। মঙ্গলবার ধার্যকৃত তারিখে দুদকের আইনজীবীর শুনানির পর বিচারক তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন এবং না পাওয়া গেলে তাদের মালামাল ক্রোকের আদেশ দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে মিতা ভট্টাচার্য জানান, তার আইনজীবীকে তিনি সময়ের আবেদন করতে বলেছেন। সোনালী ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজার শফিকুল ইসলাম জানান, এজিএম সুজিত কুমার মণ্ডল জেনারেল ম্যানেজার কার্যালয়ে সংযুক্ত রয়েছেন। চার্জশিট হওয়ার বিষয়টি তারা জানেন না। চার্জশিট হলে বিধি বিধানমতে তার সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার কথা। কিন্তু সুজিত কুমার মণ্ডল দীর্ঘদিন ছুটিতে রয়েছেন। ##

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu