খুলনায় রোগীর চাপে দিশেহারা কতৃর্পক্ষ : একদিনে মৃত্যু ৪৮, আক্রান্ত ১৬৪২

16

খুলনা অফিস ।।

খুলনার করোনা হাসপাতালগুলোতে করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রোগীর চাপ দিন দিন বাড়ছে। খুলনাসহ বিভিন্ন জেলা-উপজেলা থেকে করোনাক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হতে আসা রোগীর চাপ সামলাতে দিশেহারা হয়ে পড়েছে হাসপাতাল কতৃর্পক্ষ ও চিকিৎসকরা। ইতিমধ্যেই রোগীতে চাপিয়ে গেছে করোনা হাসপাতালের ধারন ক্ষমতা। খুলনার চার করোনা হাসপাতালে বেড সংখ্যা রয়েছে ৪২৫টি। তবে সোমাবর এ হাসপাতালগুলোতে রোগী ভর্তি রয়েছে ৪৪৯জন।চিকিৎসক ও সহায়ক জনবল সংকটের মধ্যদিয়ে সেবা দিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে হাসপাতালগুলো।

এদিকে, খুলনায় সোমবার একদিনে করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৩জন ও উপসর্গ নিয়ে ০৫জনসহ বিভাগে ৪৮জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে করোনা পরীক্ষায় এক হাজার ৬৪২জন আক্রান্ত হয়েছে। খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের দপ্তর সূত্র জানায়,

খুলনা সিভিল সার্জন কার্যলয়ের মেডিকেল অফিসার(রোগ নিয়ন্ত্রন) ডাঃ শেখ সাদিয়া মনোয়ারা ঊষা জানান, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতাল, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল ও বেসরকারী গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ খুলনায় করোনা চিকিৎসার বেড রয়েছে ৪২৫টি। গত ২৪ঘন্টায় হাসপাতালগুলোতে নতুন রোগী ভর্তি হয়েছে ১০৪ জন।বর্তমানে এই ৪টি হাসপাতালে ৪৪৯ জন রোগী করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে ছাড়পত্র নিয়েছেন ৮৪ জন। তিনি আরও জানান, একদিনে খুলনার ০৯ উপজেলা, ০৩টি সরকারী ও একটি বেসরকারী হাসপাতালে ৮৬৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে ৩৪২ জনের করোনা পজেটিভ সনাক্ত হয়েছে।

খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ও করোনা হাসপাতালের সমন্বয়ক ডা: মেহেদী হাসান জানান, গত ২৪ ঘন্টায় খুলনা মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ৩৭৬জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে ২০২জনের করোনা সনাক্ত হয়েছে। শুধুমাত্র খুলনা জেলার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩১৪জনের। এরমধ্যে করোনা পজেটিভ এসেছে ১৮৩জনের। বর্তমানে খুলনায় করোনা সংক্রমনের হার ৫৮.২৮শতাংশ বলেও জানান তিনি।

এদিকে, খুলনার ০৪টি হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৩ জনের এবং করোনা উপসর্গ নিয়ে আরো ৫জনের মৃত্যু হয়েছে। শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে ফোকাল পারসন ডাঃ প্রকাশ দেবনাথ জানান, গত ২৪ঘন্টায় হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মহানগরীর আড়ংঘাটা এলাকার আফসার আলী নামের একজন মারা গেছেন। নতুন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪ জন ও সুস্থ্য হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন ১ জন। বর্তমানে ৪৫ জন করোনা রোগী এই হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

খুলনা মেডিকেল কলেজে করোনা হাসপাতালের ফোকালপার্সন ডাঃ সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, রবিবার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় করোনায় ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরো ৫ জন। মৃতরা হলেন, নগরীর নিরালা এলাকার বাসিন্দা মোঃ আবুল হোসেন, পাইকগাছার এলাকার সরাদার মহিউদ্দিন, খালিশপুরের শেখ আসমত আলী ও মোঃ জাহিদ হোসেন, সোনাডাঙ্গা এলাকার পলি বেগম। তিনি জানান, ১৫০বেডের করোনা হাসপাতালে বর্তমানে ১৯৯ জন করোনা রোগী এই হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এরমধ্যে রেড জোনে ১২৫, ইয়োলো জোনে ৩৪, আইসিইউতে ২০জন এবং এইচডিইউতে ২০জন রয়েছেন। তিনি আরো জানান, গত ২৪ ঘন্টায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে নতুন রোগী ভর্তি হয়েছেন ৫১ জন। এছাড়া হাসপাতাল থেকে সুস্থ্য হয়ে ছাড়পত্র নিয়েছেন ৪০জন।

খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. কাজী আবু রাশেদ জানান, গত ২৪ঘন্টায় হাসপাতালে ০৩জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন, খুলনা নগরীর মুন্সিপাড়া এলাকার শামসুন্নাহার, দৌলতপুর রেলীগেট এলাকার মোঃ আলী আকবর ও রূপসা আনন্দনগর এলাকার বাসিন্দা মোঃ আজিজুর রহমান। তিনি আরো জানান, গত ২৪ঘন্টায় এই হাসাপাতাল থেকে সুস্থ্য হয়ে ছাড়পত্র নিয়েছেন ১২ জন রোগী। করোনায় আক্রান্ত হয়ে নতুন ভর্তি হয়েছেন ২০ জন। ৮০বেডের করোনা ইউনিটের হাসপাতালে বর্তমানে ৭৬জন রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। এসব রোগীদের মধ্যে পুরুষ ৩৭ ও মহিলা ৩৯ জন।

বেসরকারী গাজী মেডিকেল কলেজ করোনা হাসপাতালের ডা: গাজী মিজানুর রহমান জানান, গত একদিনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতব্যক্তিরা হলেন,বাগেরহাটের কচুয়ার শেখ জাফর আহমেদ, খুলনার ইকবালনগরের মুশতারী বগেম ও টুটপাড়ার সালেহা বেগম। এছাড়া গত ২৪ঘন্টায় ভর্তি ২৯জনসহ ১৫০শয্যার বিপরীতে ভর্তি রয়েছে ১২৯জন।

সোমবার খুলনা বিভাগের সর্বোচ্চ মৃত্যু ও আক্রান্ত হয়েছে খুলনা জেলায়। এদিন খুলনায় করোনায় মারা গেছে ১৮জন ও পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ হয়েছেন ৩৪২জন।এরপরেই আছে যশোরে ১২জনের মৃত্যু ও আক্রান্ত হয়েছেন ৩১১জন। এছাড়া বিভাগের অন্য জেলাগুলোর মধ্যে কুষ্টিয়ায় মারা গেছে ০৯জন ও আক্রান্ত হয়েছে ২৭৭জন, নড়াইলে মারা গেছে ০১জন ও আক্রান্ত হয়েছে ৬৭জন,ঝিনাইদহে মৃত্যু ০৬জন ও আক্রান্ত ৯০জন, বাগেরহাটে মৃত্যু ০২জন ও আক্রান্ত হয়েছে ১৯৬জন, সাতক্ষীরায় মৃত্যু ০১জন ও আক্রান্ত ১১৬জন, মাগুরায় মৃত্যু ০১জন ও আক্রান্ত ৫৮জন ও চুয়াডাঙ্গায় মৃত্যু ০৩জন ও ১২৮জন আক্রান্ত এবং মেহেরপুরে আক্রান্ত হয়েছে ৫৭জন। এরআগে ১১জুলাই খুলনার ১৪জনসহ বিভাগে করোনায় ৬০জন ও উপসর্গে আরও ৫জনের মৃত্যু হয়। ১০জুলাই খুলনার ১০জনসহ বিভাগে করোনায় ৪৬জন ও উপসর্গে আরও ৭জনের মৃত্যু হয়। ০৯জুলাই খুলনার ২৩জনসহ বিভাগে করোনায় ৭১জন ও উপসর্গে আরও ৮জনের মৃত্যু হয়। ০৮জুলাই খুলনার ২১জনসহ বিভাগে ৫১জনের করোনায় ও উপসর্গে ০৯জনের মৃত্যু হয়। ০৭জুলাই খুলনার ২১জনসহ বিভাগে ৬০জনের করোনায় ও উপসর্গে ৬জনের মৃত্যু হয়। ০৬জুলাই খুলনায় ১৪জনসহ বিভাগে ৪০জন করোনায় ও উপসর্গে ০৪জনের মৃত্যু হয়। এছাড়া ০৫জুলাই ৫১জন করোনায় ও উপসর্গে ০৫জন, ০৪জুলাই ৪৬জন করোনায় ও উপসর্গে এক জন, ০৩জুলাই ৩২জন, ০২জুলাই ২৭জন করোনায় ও উপসর্গে একজন, ০১জুলাই ৩৯জন করোনায় ও উপসর্গে ৩জন, ৩০জুন ২৭জন, ২৯জুন ৩২জন করোনায় ও একজনের উপসর্গে এবং ২৮জুন করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩০জনের মৃত্যু হয়েছে। ##