সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৬:০৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
খুলনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরবের ১০১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠান ০১জুলাই পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ ঘোষণা পদ্মা সেতুতে হ-য-ব-র-ল অবস্থা : নাটবোল্ট খোলা যুবক বিএনপি কর্মী বাইজীদ আটক খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে সিটিজেন চার্টার এন্ড জিআরএস-১ শীর্ষক প্রশিক্ষণ টেকসই অর্থায়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ ও সচেতনতামূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদল নেত্রী রুমার বাড়িতে হামলা,  জেলা ছাত্রদলের নিন্দা  নগরীতে হিজড়া ও লিঙ্গ বৈচিত্রময় জনগোষ্টির বৈষম্য দুরীকরনে নেটওয়ার্কিং মিটিং অনুষ্ঠিত সিটি মেয়রের কাছে নাগরিক ফোরাম প্রস্তাবিত উন্নয়ন পরিকল্পনা উপস্থাপন ফকিরহাটে মাতৃত্বকালীন ভাতা গ্রহণকারী মায়েদের প্রশিক্ষণ ন্যাপ নেতা তপন রায় ছিলেন নির্মোহ, নির্লোভ, নিবেদিত প্রাণ

খুলনায় রাত আটটার পর দোকান, শপিংমল ও বিপনী বিতান বন্ধ ঘোষনা

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় মঙ্গলবার, ২১ জুন, ২০২২
  • ৭ পড়েছেন

খুলনা প্রতিনিধি।।

বিশ্বব্যাপী জ্বালানীর অব্যাহত মূল্য বৃদ্ধিজনিত বিদ্যমান পরিস্থিতিতে বিদ্যুৎ ও জ্বালানী সাশ্রয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশনা প্রদান করেছেন। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশ শ্রম আইন, ২০০৬-এর ১১৪ধারার বিধান মতে সোমবার(২০জুন) থেকে রাত আটটার পর দোকান, শপিংমল, মার্কেট, বিপনী বিতান বন্ধ রাখার ঘোষনা দেয়া হয়েছে। সোমবার বিকেলে খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলার ব্যবসায়ীদের সাথে মতবিনিময় সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

খুলনার জেলা প্রশাসক মোঃ মনিরুজ্জামান তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। মতবিনিময় সভায় কেসিসি’র সচিব মোঃ আজমুল হক, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট পুলক কুমার মন্ডল, শ্রম দপ্তরের বিভাগীয় পরিচালক মোঃ মিজানুর রহমান, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক মোঃ শাহিনুর রহমানসহ সরকারি কর্মকর্তা, বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের প্রতিনিধি ও  শ্রমিক প্রতিনিধিরা অংশ গ্রহণ করেন।

মতবিনিময় সভায় সিটি মেয়র বলেন, সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রাত আটটার পর দোকানপাট বন্ধ রাখতে হবে। তবে রাত আটটার পরে পচনশীল পণ্যের পাইকারী আড়তে লোড-আনলোড কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে কিন্তু খুচরা বিক্রি করা যাবে না। ঔষধ ও খাবার হোটেল খোলা থাকবে। দোকান মালিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, রাত আটটায় দোকান বন্ধের কারণে শ্রমিকের বেতন কর্তন করা যাবে না।

সভায় জানানো হয়, বাংলাদেশের শ্রম আইনের ১১৪-এর উপধারা ৩অনুযায়ী  রাত আটটার পরে কোন দোকান খোলা রাখা যাবে না। তবে ঔষধ, অপারেশন সরঞ্জাম অথবা চিকিৎসা সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান, ডক, জেটি, স্টেশন অথবা বিমান বন্দর এবং পরিবহন সার্ভিস টার্মিনাল, তরি-তরকারী, মাংস, মাছ, দুগ্ধ জাতীয় সামগ্রী, রুটি, পেষ্ট্রি, মিষ্টি এবং ফুল বিক্রির দোকান খোলা রাখা যাবে। এছাড়া দাফন ও অন্তোষ্টিক্রিয়া সম্পাদনের জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান, খবরের কাগজ, সাময়িকী বিক্রির দোকান এবং দোকানে বসে খাওয়ার জন্য হালকা নাশতা বিক্রির খুচরা দোকান, পেট্রোল পাম্প, ময়লা নিস্কাশন অথবা স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, যে কোন শিল্প, বিদ্যুৎ-পানি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা যাবে। ##

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu