স্বাস্থ্য ক্যাডারে হাওড় পাড়ের কৃতিকন্যা আখিঁ

141

শফিকুল ইসলাম :

গত মঙ্গলবার বিকালে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসপি) প্রকাশিত ৩৮তম বিসিএস পরীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফলে স্বাস্থ্য ক্যাডারে সহকারি ডেন্টাল সার্জন মনোনিত হয়ে নেত্রকণার মোহনগঞ্জ বাসীর মুখ উজ্জ্বল করেছে  দক্ষিণ টেংগা পাড়া গ্রামের কৃতিকন্যা মাহবুবা আক্তার আখিঁ। হাওড় পাড়ের মানুষ যেন বিজয় উল্লাসে মেতেছে কৃতিকন্যা মাহবুবা আক্তার আখিঁর প্রশংসায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার এ অসামান্য সাফল্যকে স্বাগত জানিয়ে অভিনন্দন বার্তায় পঞ্চমুখ মোহনগঞ্জ বাসী।

জানাগেছে, প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের অবসরপ্রাপ্ত নেত্রকণার মোহনগঞ্জ উপজেলার আব্দুল জলিল তালুকদারের মেয়ে মাহবুবা আক্তার আখিঁ। ১৯৯১ সালে তার জন্ম।ছোটবেলা থেকেই সাধারণ দশটি মেয়ের মত সাধাসিদে জীবন যাপন করতেন। নিজেকে সব সময় হাসিখুশি রাখতেন। সময়ের প্রতি তিনি ছিলেন দায়িত্বশীল। লেখাপড়া পাশাপাশি অবসর সময়ে তিনি বিভিন্ন ধরনের উপন্যাস, কবিতা, টিভিতে বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান সহ সংবাদপত্র পড়ার অভ্যাস রয়েছে। পরিবারের পাচঁ সদস্যদের মধ্যে সে সবার ছোট। দু’বোন সরকারি প্রাইমারি স্কুলে চাকরিরত আছে আর দু’ ভাইয়েরর মধ্যে এক ভাই এডভোকেট অন্যজন নির্বাচন কমিশনে কর্মরত।

তার শিক্ষা জীবন সুনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্টান থেকে শুরু করে। গ্রামের প্রাইমারি সরকারি স্কুল থেকে শুরু করে মোহনগঞ্জ পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ২০০৭ সালে কৃতিত্বের সাথে জিপিএ ৫ অর্জন করে পরবর্তীতে এইচএসসি ময়মনসিংহ সৈয়দ নজরুল ইসলাম কলেজ থেকে ২০০৯ সালে জিপিএ ৫ অর্জন করার পর বিডিএস ডেন্টাল – চট্টগ্রাম ডেন্টাল কলেজ থেকে।

৩৯ তম স্পেশাল বিসিএস পরীক্ষা সাফল্যের সাথে স্বাস্থ্য ক্যাডারে মেধা তালিকায় ২য় স্থান অর্জন করে। তিনি মোহনগঞ্জ উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগদান করে এবং বর্তমানে সেখানে কর্মরত আছে। তাছাড়া তিনি এবার ৩৮ তম বিসিএস পরীক্ষা ২য় বারের মতো সহকারি ডেন্টাল সার্জন হিসাবে সুপারিশ প্রাপ্ত হয়।

খোজঁ নিয়ে জানা গেছে, আখিঁর সাফল্যে মোহনগঞ্জ উপজেলায় মানুষের মাঝে এক প্রকার খুশির আমেজ বিরাজ কাজ করছে। পৌরসভার মেয়র, আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, সুশীল সমাজ, শিক্ষক, সাংবাদিক সহ সাধারণ মানুষ তাকে স্বাগত জানিয়ে পেশাগত জিবনের সফলতা কামনা করছেন। যাতে গরীব মানুষেরা প্রকৃত সেবা থেকে বঞ্চিত না হয়।

এবিষয়ে আখিঁর অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘‘চিকিৎসা একটি মহৎ পেশা। এর মধ্যে মানব সেবার সুযোগ পাওয়া যায়। আর মানব সেবার মাঝেই সৃষ্টিকর্তার সেবা নিহিত। তাই মানুষের সেবার জন্যেই চিকিৎসা বেছে নিয়েছি। আমার স্বপ্ন ছিল ছোটবেলা থেকে তাছাড়া আমার মা- বাবা সহ পরিবারের সকল ভাই-বোনের স্বপ্ন আজ বাস্তবে রূপ নিল। আল্লাহ পাক আমার মনের আশা পূরণ করেছে। চাওয়ার আর কিছু নেই এখন শুধু মানুষের সেবাইটা আমার মূল লক্ষ্য।’’

মাহবুবা আক্তার আখিঁ’র বড় ভাই মোঃ জিয়া উদ্দিন বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনে চাকরি করেন। তিনি বলেন, ওর ছোটবেলা থেকেই পরিবারের সবার ইচ্ছা ছিল সে ডাক্তার হবে। আমার বোনেরও স্বপ্ন ছিল ডাক্তার হবে। অবশেষে বোনের স্বপ্ন পূরণ হল। এ জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে শুকরিয়া আদায় করছি।  আজ আমরা রীতিমতো খুশি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here