ঢাকা ০৮:৫৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রক্ত দেব তবু লবন পানি তুলতে দেব না; দাকোপে লবন পানি উত্তোলন বন্ধের দাবিতে মানববন্ধনে এলাকাবাসী

দাকোপ(খুলনা) প্রতিনিধি :
দাকোপের ভদ্রা নদীতে ইজারার নামে লবন পানি উত্তোলন এবং আড়া-আড়ি নেট পাটা দিয়ে পানি সরবরাহে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিার প্রতিবাদে পানখালী ও তিলডাঙ্গা ইউনিয়ন বাসীর যৌথ উদ্যোগে খোনা জাইকা ব্রীজ এলাকায় বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ।

১৬ জুন রবিবার সকাল ১০ টায় জাইকা ব্রীজ এলাকায় পানখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তৃতা করেন দাকোপ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আবুল হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তৃতা করেন খুলনা জেলা পরিষদ সদস্য জয়ন্তী রানী সরদার, তিলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রনজিত কুমার মন্ডল, কামারখোলা ইউপি চেয়ারম্যান পঞ্চানন মন্ডল, আওয়ামী লীগ নেতা স্বপন কুমার সরকার, আব্দুর রহিম মোল্ল্যা, মোস্তাক ফকির, সাংবাদিক শেখ মোজাফফার হোসেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, রক্ত দেব তবু লবন পানি উঠিয়ে চিংড়ী চাষ করতে দেব না। যুগ যুগ ধরে গ্রামের হাজার হাজার কৃষক ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ ভদ্রা নদীর দুই পাশে বসবাস করে আসছে। কৃষি তাদের প্রধান জীবিকা। এ নদী থেকে মৎস্য আহরণ করে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করে থাকে অনেকেই। বিগত বছরগুলোতে যারা ইজারা নিয়েছে তারা কখনো নেট পাটা এ নদীতে ব্যবহার করেনি। নদীতে ২টি সুইসগেট থাকায় নদীটি খোলা জলশায় হিসাবে পরিচিত। বর্তমান বছরে খুলনা ও পাইকগাছার বহিরাগত প্রভাবশালীরা পানখালী মৎস্য জীবি সমবায় সমিতির নামে ইজারা নিয়ে নদীতে লবন পানি ঢুকিয়ে ও আড়া-আড়ী ভাবে নেট পাটা ব্যবহার করে মৎস্য চাষ করছে। ফলে স্থানীয় ছোট ছোট জলাশয় গুলোতে লবন পানি ঢোকার কারণে গবাদীপশু লবন পানি পান করে নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। আগামী আমন চাষ ব্যাহত হবে। ইজারাদাররা জলমহল নীতিমালাকে বৃদ্ধাংগুল দেখিয়ে বে-আইনী ভাবে জনগনের ক্ষতি সাধন করছে।

নদী থেকে আড়া-আড়ী নেট পাটা অপসারণসহ ইজারাদারদের উচ্ছেদের দাবী করেন এলণাকাবাসী।

Tag :
About Author Information

বাংলার দিনকাল

Editor and publisher
জনপ্রিয় সংবাদ

খুবিতে ‘জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ উদ্বোধন

রক্ত দেব তবু লবন পানি তুলতে দেব না; দাকোপে লবন পানি উত্তোলন বন্ধের দাবিতে মানববন্ধনে এলাকাবাসী

প্রকাশিত সময় ০৮:৪৯:২০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯

দাকোপ(খুলনা) প্রতিনিধি :
দাকোপের ভদ্রা নদীতে ইজারার নামে লবন পানি উত্তোলন এবং আড়া-আড়ি নেট পাটা দিয়ে পানি সরবরাহে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিার প্রতিবাদে পানখালী ও তিলডাঙ্গা ইউনিয়ন বাসীর যৌথ উদ্যোগে খোনা জাইকা ব্রীজ এলাকায় বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ।

১৬ জুন রবিবার সকাল ১০ টায় জাইকা ব্রীজ এলাকায় পানখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তৃতা করেন দাকোপ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আবুল হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তৃতা করেন খুলনা জেলা পরিষদ সদস্য জয়ন্তী রানী সরদার, তিলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রনজিত কুমার মন্ডল, কামারখোলা ইউপি চেয়ারম্যান পঞ্চানন মন্ডল, আওয়ামী লীগ নেতা স্বপন কুমার সরকার, আব্দুর রহিম মোল্ল্যা, মোস্তাক ফকির, সাংবাদিক শেখ মোজাফফার হোসেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, রক্ত দেব তবু লবন পানি উঠিয়ে চিংড়ী চাষ করতে দেব না। যুগ যুগ ধরে গ্রামের হাজার হাজার কৃষক ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ ভদ্রা নদীর দুই পাশে বসবাস করে আসছে। কৃষি তাদের প্রধান জীবিকা। এ নদী থেকে মৎস্য আহরণ করে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করে থাকে অনেকেই। বিগত বছরগুলোতে যারা ইজারা নিয়েছে তারা কখনো নেট পাটা এ নদীতে ব্যবহার করেনি। নদীতে ২টি সুইসগেট থাকায় নদীটি খোলা জলশায় হিসাবে পরিচিত। বর্তমান বছরে খুলনা ও পাইকগাছার বহিরাগত প্রভাবশালীরা পানখালী মৎস্য জীবি সমবায় সমিতির নামে ইজারা নিয়ে নদীতে লবন পানি ঢুকিয়ে ও আড়া-আড়ী ভাবে নেট পাটা ব্যবহার করে মৎস্য চাষ করছে। ফলে স্থানীয় ছোট ছোট জলাশয় গুলোতে লবন পানি ঢোকার কারণে গবাদীপশু লবন পানি পান করে নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। আগামী আমন চাষ ব্যাহত হবে। ইজারাদাররা জলমহল নীতিমালাকে বৃদ্ধাংগুল দেখিয়ে বে-আইনী ভাবে জনগনের ক্ষতি সাধন করছে।

নদী থেকে আড়া-আড়ী নেট পাটা অপসারণসহ ইজারাদারদের উচ্ছেদের দাবী করেন এলণাকাবাসী।