মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৫৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
বাংলাদেশ-ভারত আমদানি-রফতানি চুক্তির প্রথম ট্রায়ালের পণ্য মোংলায় খালাস : মেঘালয় ও আসামের উদ্দেশ্যে যাত্রা নির্বাচন আসলেই এদেশের কিছু ধান্দাবাজ একত্রিত হয় : তালুকদার খালেক দেশে রিজার্ভ নেই-একদিন দেখবেন শেখ হাসিনাও মসনদে নেই : বিএনপি বঙ্গমাতার গুণাবলী ধারণ করে মেয়েদের এগিয়ে যেতে হবে : খুবি উপাচার্য বঙ্গবন্ধুর বাঙালির মুক্তির মহানায়ক হয়ে ওঠার পেছনে প্রেরণা ছিলেন  বঙ্গমাতা : সিটি মেয়র বঙ্গবন্ধু ছিলেন জাতির কান্ডারি ও রাজনীতির কবি : এসডিএফ চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ বাংলাদেশ-ভারত ট্রানজিট চুক্তি বাস্তবায়নে ভারতের ট্রায়াল জাহাজ মোংলা বন্দরে’ খুলনায় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকীতে দু:স্থ্যদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরন শেখ হাসিনার পায়ের নিচে মাটি নেই-দেশে রিজার্ভ নেই : বিএনপি খুলনাসহ দেশের মৎস্য সেক্টরে অভাবনীয় সাফল্য এসেছে : মৎস্য সচিব

দাকোপে জনদূর্ভোগের আরেক নাম বাজুয়া -দ্বীগরাজ খেয়াঘাট

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় মঙ্গলবার, ১১ জুন, ২০১৯
  • ১০৫৯ পড়েছেন

পাপ্পু সাহা, খুলনাঃ- খুলনা জেলার দাকোপ উপজেলার বাজুয়া- দ্বীগরাজ পারাপারের খেয়াঘাটের অবস্থ্যা নাজুক থাকায় চরম  দূর্ভোগ পোহাচ্ছে সাধারণ জনগন। সরেজমিনে দেখা যায় বাজুয়া, লাউডোব, কৈলাশগঞ্জ, দাকোপ, বানীশান্তা সহ বিভিন্ন এলাকার কর্মজীবি, ছাত্রছাত্রী সহ বিভিন্ন পেশার হাজার হাজার মানুষের পারাপার এই ঘাট দিয়ে।

জনসাধারনের পারাপারের জন্য ঘাটের বাজুয়র পারে বাঁশের চালি দিয়ে তৈরি করা হয়েছে লম্বা সাকোঁ। এই সাকোঁর মাঝে মাঝে ভেঙে তা হয়ে উঠেছে মরন ফাঁদ।

অথচ এই ঘাটটির পাশেই পাশে তৈরি হয়েছে নতুন ঘাট যেটা এখনো উদ্বোধন হয়নি। স্থানীয় জনের সাথে কথা বলে জানা যায় এখন মরাগোন তাই ভাটায় জল কম হচ্ছে যার কারনে চরম ভোগান্তি পোহাচ্ছে সাধারণ জনগন।

এলাকার বিভিন্ন মানুষের ভাষ্য অনুযায়ী জলদি পারাপারের জন্য রয়েছে আলাদা ট্রলার ঔ পারাপারের জন্য ঘাটে বাড়তি ৫টাকা গুনতে হয়, আবার পানি ভাটায় সরে গেলে হাটু সমান কাঁদা দিয়ে যেত হয়। নাহলে আবারও গুনতে হয় ৫টাকা। সব মিলে ভাটায় জলদি খেয়াতে যেতে গেলে সাধারণ জনগনের  নদী পার হতে ৫ টাকার জায়গায় গুনতে হয় ১৫টাকা।

ঘাটের একজন শ্রমিকের সাথে কথা হলে তিনি বলেন আমরা যতদুর পারছি চেষ্টা করছি সাঁকো তৈরি করছি দিনদিন নদীতে চরা পরে যাচ্ছে, যার কারনে এই সমস্যা হচ্ছে, আর সাধারণ জনগনের উপকারের জন্যই এই জলদি ট্রলার দেওয়া।

আরো জানা যায় কিছুদিন আগে দাকোপ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঘাটটির দুইপাড় পরিদর্শন করেছেন।

এলাকার সকল শ্রেনীর মানুষের একটাই দাবি ঘাটটি সংস্কার করা হোক কিংবা নতুন ঘাটটি খুলে দেওয়া হোক তা না হলে বাশেঁর তৈরি ঘাট থেকে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটনা।

এদিকে ঘাটের এমন বেহাল দশার জনভোগান্তিকর দৃশ্যের ছবি তুলে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করে দ্রুত ঘাট সংস্কার চেয়ে এই চরম অব্যবস্থাপনায় সমালোচনার ঝড় তুলেছে ওই এলাকার তরুণ যুব সমাজসহ সকল শ্রেণীপেশার মানুষ।

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu