শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
জয়বাংলা শ্লোগান দিয়ে হেলমেটধারীরা সমাবেশে হামলা চালায় : বিএনপি নেতৃবৃন্দ খুলনায় দুইস্থানে আওয়ামীলীগ-বিএনপির সভা আহবান, পুলিশের নিষেধাজ্ঞা জারি খুলনা জেলা পরিষদের চিত্রাংকন প্রতিযোগীতার সনদপত্র ও পুরস্কার বিতরন খুলনা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প বিএনপির কর্মীসভায় হামলা-ভাংচুর, শতাধিক নেতাকর্মী আহত তোরখাদায় যুবলীগের উদ্যোগে নানা কর্মসূচির মাধ্যমে জাতীয় শোক দিবস পালন দাকোপে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে রাজাকার অতিথি, মুক্তিযোদ্ধাদের অনুষ্ঠান বর্জন দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার পৃষ্ঠপোষকদের ফাঁসি দিতে হবে আওয়ামীলীগ তেরখাদা উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল প্লাস্টিক দূষণ রোধকল্পে টেকসই ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা অপরিহার্য : ড. মুহাম্মদ আলমগীর

জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস যুগের চাহিদা মেটাতে তৈরি হচ্ছে জনপ্রশাসন

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় সোমবার, ২২ জুলাই, ২০১৯
  • ৩২০ পড়েছেন

তথ্যবিবরণী :
২৩ জুলাই (মঙ্গলবার) তৃতীয় বারের মত দেশে পালিত হবে জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস।

উদ্ভাবনী ধারণা ও প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে সেবা সহজীকরণ, গণবান্ধব জনপ্রশাসন গড়ার প্রত্যয় এবং সরকারি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়ার ইতিবাচক মানসিকতা তৈরি করাই এ দিবস পালনের লক্ষ্য। ব্রিটিশ আমলের উত্তরাধিকার, বর্তমান সিভিল সার্ভিসে যুগের চাহিদা অনুযায়ী গুণগত অনেক পরিবর্তন এসেছে। এখন আর নিজেদের জনগণের শাসক ভাবার সুযোগ নেই। প্রশাসন এখন উন্নয়ন ও জনকল্যানমুখী। বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী প্রজাতন্ত্রের সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ। ফলে দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে জনস্বার্থই অগ্রাধিকার পাওয়ার যোগ্য।

২০০৩ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সিদ্ধান্ত অনুসারে প্রতিবছর ২৩ জুন আন্তর্জাতিক পাবলিক সার্ভিস দিবস পালিত হয়। পাবলিক সার্ভিসের মর্যাদা ও মূল্যবোধ ধরে রাখা এবং এক্ষেত্রে অনুকূল কর্মপরিবেশ নিশ্চিতের প্রত্যাশাই জাতিসংঘের ভাবনার কেন্দ্র। এই দিবসটি পালনের পাশাপাশি ২০১৭ সাল হতে বাংলাদেশে ২৩ জুলাই ‘জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস’ পালিত হচ্ছে। তবে বাংলাদেশের ধারণাটি জনকেন্দ্রিক। বাংলাদেশের সংবিধানের ২১ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ‘সকল সময়ে জনগণের সেবা করিবার চেষ্টা করা প্রজাতন্ত্রের কর্মে নিযুক্ত প্রত্যেক ব্যক্তির কর্তব্য’। যা নিশ্চিত করতে সরকারি প্রচেষ্টা নিরন্তরভাবে চলছে। সরকারি সেবাকে সুলভ ও সহজ করার প্রত্যয়ে প্রশাসনের সর্বস্তরে উদ্ভাবনশীলতার চর্চা বৃদ্ধি করতে উদ্ভাবনী কার্যক্রম, দুর্নীতি ও ভোগান্তি দূর করতে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল (এনআইএস) ও সঠিক সময়ে কাজ শেষ করতে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

সেবাকে হয়রানিমুক্ত করতে ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার হচ্ছে। ই-নথি ব্যবস্থাপনায় দপ্তরসমূহের কাজে আসছে গতি। পাসপোর্টের আবেদন, থানায় জিডি করা, আয়কর নম্বর গ্রহণসহ অনেক সেবা আজ ঘরে বসে অনলাইনে পাওয়া যায়। মোবাইল ব্যাংকিং এ ফি দিয়ে ঘরে বসে প্রিন্ট নেয়া যায় ই-পর্চার। হট লাইন নম্বর ৯৯৯ তে কল করলেই মেলে পুলিশ, এম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিসসহ অনেক সেবা। মানুষ সিভিল প্রশাসনের কাছে সুশাসন ও সেবা আশা করে। সুশাসন নিশ্চিত করতে নাগরিকসেবা সহজ, সুলভ, স্বচ্ছ ও জবাবদিহিমূলক করতে হবে। যার কাছে যেটুকু সেবা প্রদানের সুযোগ রয়েছে সেটুকু সঠিক ও সর্বোত্তমভাবে নাগরিকদের প্রত্যাশা অনুযায়ী প্রদান করাই জনপ্রশাসনের লক্ষ্য হতে পারে।

দ্রুততম সময়ে ও নূন্যতম অর্থ ব্যয়ে সরকারি সেবা জনগণের কাছে পৌঁছে দেবার প্রত্যয় নিয়ে বিভাগীয় শহর খুলনাতে আগামীকাল ২৩ জুলাই পালিত হবে জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস। এ উপলক্ষে খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকাল নয়টায় নগরীর শহিদ হাদিস পার্ক থেকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় পর্যন্ত বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হবে। পরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu