শহুরে বাবুদের করোনা অবকাশে গ্রামীণ জীবন বিপাকে

326

হাবিবুর রহমান, নীলফামারী :

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে দেশের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান দীর্ঘ দিন বন্ধে রাজধানী ঢাকা সহ বিভিন্ন শহরে কর্মজীবী যুবক-যুবতীদের গ্রামে জমজমাট আসরে গ্রামীণ জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ।

নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার শালহাটী ইউনিয়নের বুড়ি তিস্তা নদী এলাকার বটতলি গ্রামের বাসিন্দা শ্রী শ্রী ভূষণ চন্দ্র রায় (৩৫)বলেন, আমাদের এই ইউনিয়নের সিংহভাগ দরিদ্র পরিবারের যুবক-যুবতী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন শহরে জীবিকার খোঁজে পাড়ি জমিয়েছেন। কেউ গার্মেন্টস কারখানায় কেউবা অটোরিকশা চালায়, আবার অনেকেই নামি-দামি কম্পানিতে চাকরি-বাকরি করেন। এটা আমাদের এই পশ্চাদপদ জনগোষ্ঠীর জীবন মানোন্নয়নে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। না হলে হতো বা হাজার হাজার পরিবার না খেয়ে মর্মান্তিক জীবন যাপন করতো।

কিন্তু এই নানামুখী পেশার মানুষকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে যখন তাদের কর্ম স্থল বন্ধ ঘোষণা করা হলো ঠিক তখনই ঘটনা উল্টো ঘটল। যেমন ধরুন একই সাথে একটি গাড়িতে স্বাভাবিক যাত্রীর চেয়ে তিন গুণ যাত্রী উঠল। সবাই গ্রামে গ্রামে ফিরে যেতে দিশেহারা হয়ে পড়ছে। নেই কোন স্বাস্থ্য সম্মত যাতায়াতের ব্যাবস্থা। ফলে আমাদের এই সোনার বাংলায় করোনা সংক্রমণ স্বাভাবিক ভাবেই ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্রই। কী লাভ হলো আমাদের জাতীয় জীবন দর্শনে এই পদক্ষেপ গ্রহণ করে?

এখানেই শেষ নয়, এই ঢাকা ও বিদেশ ফেরত বাবুরা গ্রামে এসে নানা বাড়ি, দাদা বাড়ি ছাড়াও চৌদ্দগোষ্টীর বাড়ি বাড়ি চষে বেড়াচ্ছেন। গ্রামে গ্রামে করোনা ভাইরাস ও আকাশে বাতাসে ছড়িয়ে পড়ছে ।

এছাড়াও অনেকে আবার দীর্ঘ দিন পর গ্রামের বন্ধুদের সাথে মিলিত হয়ে মেতে উঠেছে অদম্য সব খেলা-ধুলায়। এই গ্রামের নদীর তীরে একটি মাঠে আজ বিকেলে জমেছে ফুট বল খেলা । এখানে যুবক থেকে কিশোর ছেলেরাও বাদ পরে নাই। এরা অনেকেই ভাবতেছে যে, গ্রামে করোনা ভাইরাস আসতে পারে না ।ঢাকা থেকে গ্রামে ফিরে আসা মানুষের জন্য হোমকেয়ারাইন্টেনের কোন উল্লেখ যোগ্য আদেশও নেই । শুধু বিদেশ ফেরতদের জন্য হোমকেয়ারাইন্টেন। গ্রামে এসে করোনা ভাইরাস মুক্ত, কেউ প্রতিবাদ করতে পারবেন না তাদের । স্বাধীন সর্বভৌম বাংলাদেশের বীর বাঙ্গালি তারা । এমপি থেকে চৌকিদার পর্যন্ত আছে তাদের আপন জন। প্রতিবাদ করার কেউ নেই। বিপদে পরেছে সাধারণ মানুষ । এক দিকে ক্ষুধার জ্বালা অন্য দিকে প্রশাসনের ঠ্যাঁলা; তা না হলে মৃত্যুর মেলা।

এখনই যদি এই ঢাকা থেকে গ্রামে ফিরে আসা মানুষের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা না হয় জ্যামিতিক হারে বর্ধন শীল করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ অসম্ভব হয়ে পরবে। তাই আমি দেশের সর্ব স্তরের মানুষের কাছে ও প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাই যে ঢাকা ও বিদেশ ফেরত বাবুদের অবাধ বিচরণ নিষিদ্ধ করা উচিত ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here