চলে গেলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক লুৎফর রহমান মনি

733

কানাই মণ্ডল :
১৯৭০ এর নির্বাচনে (দাকোপ-বটিয়াঘাটা-রামপাল) থেকে আওয়ামীলীগের মনোনয়নে নির্বাচিত পাকিস্থান ন্যাশনাল অ্যাসেম্বিলির সদস্য এবং ৭১’র মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক লুৎফর রহমান মনি ইন্তেকার করেছেন। তিনি কিডনি, হার্টের সমস্যা ও লাঞ্চ ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ২১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ভোরে খুলনা মহানগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু বরণ করেন। গতকাল বৃহস্পতিবার বাদ আসর খুলনা আলিয়া মাদ্রাসা চত্ত্বরে মরহুমের জানাজা শেষে নগরীর টুটপাড়া কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

প্রয়াত লুৎফর রহমান মনি ১৯৩১ সালে দাকোপ উপজেলার পানখালি ইউনিয়নের হোগলাবুনিয়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। ছাত্র জীবনে অত্যন্ত নম্র-ভদ্র, জনদরদী ও মেধাবী ছাত্র ছিলেন মনি। পাকিস্থান সরকারের বিরুদ্ধে আওয়ামীলীগের সকল আন্দোলন সংগ্রামে সহায়তাসহ বঙ্গবন্ধুর ডাকে দেশ স্বাধীন করার প্রত্যয়ে সদা তৎপর ছিলেন তিনি। ৭০’র নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আ’লীগের মনোনয়নে এম এন এ নির্বাচিত হয় তিনি। ৭১-এ মহান মুক্তি যুদ্ধ শুরূ হলে কলকাতায় অরবিন্দু ভট্টাচার্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে তৎকালীন প্রবাসী সরকারে সকল কার্যক্রমে সহায়তা শুরু করেন তিনি। এ সময় তিনি দেশকে শত্রুমুক্ত করার জন্য মুক্তি যুদ্ধে অংশ নিতে দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের মানুষদের অনুপ্রাণিত করে মুক্তি যুদ্ধের অনত্যম সংগঠক হিসাবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। তিনি এ সময় ভারতে অবস্থানরত শরনার্থীদের সার্বক্ষনিক খোঁজ খবরও নিতেন।

খুলনা জেলা আ’লীগের সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদ বলেন,‘‘ লুৎফর রহমান মনি ছিলেন আমাদের সিনিয়র নেতা। তিনি মহান মুক্তি যুদ্ধের সংগঠক ছিলেন। অত্যন্ত সৎ, জনদরদী ও বিনয়ী এই বর্ষিয়ান রাজনীতিক মুজিবনগর সরকার গঠন ও ১৭ এপ্রিল মেহেরপুরে মন্ত্রিপরিষদের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। গতকাল বাদ আসর খুলনা আলিয়া মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত মরহুমের জানাজায় রাষ্ট্রিয় মর্যাদায় র্গাড অব অনার প্রদান করে তাঁকে সম্মান জানানো হয়। এ সময় খুলনা জেলা আ’লীগের পক্ষ থেকে নতেৃবৃন্দদের উপস্থিতিতে তাঁর কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। আমি তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনা করি।’’

দাকোপ উপজেলা আ’লীগের সভাপতি শেখ আবুল হোসেন বলেন,‘‘ শ্রদ্ধাভাজন লুৎফর রহমান মনি ছিলেন বিদ্যান ও সৃষ্টিশীল মানুষ। তিনি শুধু মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছিলেন না, তিনি দাকোপের বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ ও সামাজিক কল্যাণকর সংগঠনের সংগঠকও ছিলেন। তাঁর সান্নিধ্যে মোজাম নগর স্কুল ও ইয়াসিন স্কুলে বিদ্যুৎসাহী সদস্য হিসাবে ছিলাম, তাঁর মত বিদ্যান ও নীতিবান মানুষকে হারিয়ে দাকোপবাসী শোকাহত। আমি তাঁর বেহেস্ত কামনা করি।”

সামাজিক ভাবে প্রতিষ্ঠিত ও সর্বজন শ্রদ্ধেয় এই প্রয়াত লুৎফর রহমান মনি(৮৮) মৃত্যুকালে দুই ছেলে ও তিন মেয়ে সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান। তাঁর বড় ছেলে শামীম রহমান অর্নব খুলনা শহরের একজন ব্যবসায়ী, মেজ ছেলে শাহীন রহমান বর্তমানে ঢাকা সেগুন বাগিচায় এনএসআই ডিরেক্টর হিসাবে কর্মরত আছেন, মেয়ে শারমিন লক্ষ্মী মনি ঢাকা জর্জকোর্টের আইনজীবী এবং অন্য দুই মেয়ে স্বামী সন্তানের সাথে বসবাস করেন।

তাঁর মৃত্যুতে খুলনা জেলা আ’লীগ, দাকোপ উপজেলা আ’লীগ, দাকোপ সমিতি, দাকোপের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ সর্বস্তরের রাজনেতিক ও সামাজিক ব্যাক্তিবর্গ শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ ও আত্মার শান্তি কামনা করে বিবৃতি প্রদান করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here