শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
বিএনপিকে রাজপথে শক্ত হাতে মোকাবেলা করা হবে লেখাপড়ার সাথে খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চা একান্ত প্রয়োজন -সিটি মেয়র কলাপাড়ায় ২০ কেজি মাংসসহ দুই হরিন শিকারী আটক তেরখাদায় জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মফিজুর রহমানের শীতবস্ত্র বিতরণ শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবান: তেরখাদায় এমপি আব্দুস সালাম মূর্শেদী মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক স্থাপনা নির্মাণে প্রধান শিক্ষকের চক্রান্ত ! চট্টগ্রামের হটহাজারীতে মন্দিরে হামলা ও ভাংচুর মামলার আসামীর কারাগারে মৃত্যু পতাকাসহ পাকিস্তান দলকে দেশে ফেরত পাঠানো উচিত : তথ্যপ্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ ভবদহের স্থায়ী জলাবদ্ধতা নিরসনে ভুক্তভোগীদের অবস্থান কর্মসূচি পালন করোনাকালীন এক লাখ ৩৫ হাজার শ্রমিককে চিকিৎসা সেবা দিয়েছে শ্রম কল্যাণ কেন্দ্র

মরণোত্তর সম্মাননা পেলেন ভাষা সৈনিক শহীদ এমএ গফুর

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৪৪২ পড়েছেন

তৃপ্তি সেন, পাইকগাছা :
দীর্ঘদিন পর মরণোত্তর সম্মাননা পেয়েছেন ভাষা সৈনিক শহীদ এমএ গফুর। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একান্ত সহোচর ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সাবেক এমএনএ শহীদ এমএ গফুরকে মরণোত্তর এ সম্মাননা প্রদান করে ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে নতুন মাত্রা যোগ করেছেন খুলনার পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুলিয়া সুকায়না।

বৃহস্পতিবার উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শহীদ এমএ গফুরের পরিবারের সদস্যদের নিকট এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. সম বাবর আলী ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুলিয়া সুকায়না’র নিকট থেকে সম্মাননা গ্রহণ করেন এমএ গফুরের ছেলে আনোয়ার জাহিদ রবিন ও মেয়ে তামারা হক ছন্দা।

উল্লেখ্য, এমএ গফুর ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনকে ঘিরে গঠিত খুলনা জেলা ভাষা আন্দোলন সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক ছিলেন। তার নেতৃত্বে বেগবান হয় খুলনার ভাষা আন্দোলন। তিনি ১৯৭০ সালে পাইকগাছা-আশাশুনি নির্বাচনী এলাকা থেকে এমএনএ নির্বাচিত হন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ৯নং সেক্টরের অন্যতম সংগঠকও ছিলেন। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একান্ত সহোচর ছিলেন। ১৯৭২ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে থেকে পাইকগাছার ওয়াপদার ভেঁড়িবাঁধ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করার মাধ্যমে সুখী-সমৃদ্ধিশালী সোনার বাংলা বির্নিমান কাজের শুভ সূচনা করেন। তিনি ১৯৭২ সালের ৬জুন আততীয়দের গুলিতে নিহত হন।

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও ভাষা সৈনিক শহীদ এম,এ গফুরকে মরণোত্তর সম্মাননা প্রদান করায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুলিয়া সুকায়না ও উপজেলা চেয়ারম্যান এড. স.ম. বাবর আলী এবং বর্তমান সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন শহীদ এম,এ গফুরের পরিবারের সদস্যরা।

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

এ ধরনের আরো সংবাদ
© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)
Hwowlljksf788wf-Iu