ঢাকা ০৮:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফেসবুকে আপত্তিকর মন্তব্যের প্রতিবাদে থানায় জিডি ও লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপত্তিকর মন্তব্য করার প্রতিবাদে ননী গোপাল বিশ্বাস(৫০) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে খুলনা সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি দায়ের ও লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করা হয়েছে। ননী গোপাল খুলনা সদরের দুলাল সড়ক পশ্চিম টুটপাড়ার বাসিন্দা ও দাকোপ উপজেলার পশ্চিম বাজুয়া গ্রামের মৃত নগেন্দ্রনাথ বিশ্বাসের ছেলে।

লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গত শুক্রবারে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাজার জিয়ারত করতে যান খুলনা-১ আসনের সাবেক সাংসদ ননী গোপাল মণ্ডল ও নবনির্বাচিত দাকোপ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনসুর আলী খানসহ দলীয় কর্মী-সমর্থকরা। তাঁদের মাজার জিয়ারতের কয়েকটি ছবিসহ একটি স্টাটার্স “ননী গোপাল মণ্ডল সাবেক সাংসদ খুলনা-১” নামের একটি ফেসবুক পেজে পোষ্ট করা হয়। ওই পোষ্টের নিচে কমেন্ট বক্সে সাবেক সাংসদ ননী গোপাল মণ্ডলকে মামা পরিচয় দিয়ে “ননী বিশ্বাস” নামের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে খুলনা জজ কোর্টের এ্যাডভোকেট অসীম কুমার বৈদ্য, খুলনা জেলা ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি ও ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কানাই মণ্ডল এবং ব্যবসায়ী ও তরূণ সমাজ সেবক বিধান বিশ্বাসকে উদ্দেশ্যে করে আপত্তিকর মন্তব্য করে থাকেন।

এ বিষয়ে খুলনা জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশ ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদ খুলনা জেলা শাখার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক কানাই মণ্ডল মুঠো ফোনে বলেন, ননীগোপাল বিশ্বাসের সঙ্গে বছর তিনেক আগে একটি সামাজিক সংগঠনে সাংগঠনিকভাবে আমার পরিচয় ছিল। ওই সংগঠনের নির্বাচনে তাদের প্যানেল পরাজিত হওয়ায় কিছুটা মনমালিন্য হয়েছিল। তারপর থেকে অদ্যাবধি কোন যোগাযোগ নেই কিন্তু “ননী গোপাল মণ্ডল সাবেক সাংসদ খুলনা-১” নামের ফেসবুক পেজের পোষ্টের নিচে তিনি যে মানহানিকর মন্তব্য করেছেন তা মটেও কাম্য নয়। তিনি আরো বলেন, আমার পক্ষ থেকে সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী দায়ের ও লিগ্যাল নোটিশের মাধ্যমে আগামী ৭ দিনের মধ্যে উক্ত বিতর্কিত মন্তব্যের জবাব চাওয়া হয়েছে, ব্যর্থতায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন ২০০৬ এর ( সংশোধিত ২০১৩) এর ৫৭ ধারায় বর্ণিত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হবো।

প্রগতি মানসিক রোগ ও মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বসুন্ধরা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালক বিধান বিশ্বাস বলেন, তার সম্পর্কে ওই ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য করায় সামাজিকভাবে তার সম্মানক্ষুন্ন হচ্ছে। ননী বিশ্বাস একজন সাবেক সাংসদের ফেজবুক পেজের একটি গুরুত্বপূর্ণ পোষ্টের নিচে অসিম বৈদ্য, কানাই মণ্ডল ও আমাকে জড়িয়ে যে ধরণের অবমানকর মন্তব্য করেছে তা আদৌ ঠিক নয়।

এ ব্যাপারে বাংলার দিনকাল এর প্রকাশক ননী গোপাল বিশ্বাসের কাছে জানতে চাইলে কোন সদুত্তর না দিতে পেরে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ না করার অনুরোধ জানান।

Tag :
About Author Information

বাংলার দিনকাল

Editor and publisher

ফেসবুকে আপত্তিকর মন্তব্যের প্রতিবাদে থানায় জিডি ও লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ

প্রকাশিত সময় ০৯:৩৭:৫১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ এপ্রিল ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপত্তিকর মন্তব্য করার প্রতিবাদে ননী গোপাল বিশ্বাস(৫০) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে খুলনা সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি দায়ের ও লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করা হয়েছে। ননী গোপাল খুলনা সদরের দুলাল সড়ক পশ্চিম টুটপাড়ার বাসিন্দা ও দাকোপ উপজেলার পশ্চিম বাজুয়া গ্রামের মৃত নগেন্দ্রনাথ বিশ্বাসের ছেলে।

লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গত শুক্রবারে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাজার জিয়ারত করতে যান খুলনা-১ আসনের সাবেক সাংসদ ননী গোপাল মণ্ডল ও নবনির্বাচিত দাকোপ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনসুর আলী খানসহ দলীয় কর্মী-সমর্থকরা। তাঁদের মাজার জিয়ারতের কয়েকটি ছবিসহ একটি স্টাটার্স “ননী গোপাল মণ্ডল সাবেক সাংসদ খুলনা-১” নামের একটি ফেসবুক পেজে পোষ্ট করা হয়। ওই পোষ্টের নিচে কমেন্ট বক্সে সাবেক সাংসদ ননী গোপাল মণ্ডলকে মামা পরিচয় দিয়ে “ননী বিশ্বাস” নামের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে খুলনা জজ কোর্টের এ্যাডভোকেট অসীম কুমার বৈদ্য, খুলনা জেলা ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি ও ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কানাই মণ্ডল এবং ব্যবসায়ী ও তরূণ সমাজ সেবক বিধান বিশ্বাসকে উদ্দেশ্যে করে আপত্তিকর মন্তব্য করে থাকেন।

এ বিষয়ে খুলনা জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশ ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদ খুলনা জেলা শাখার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক কানাই মণ্ডল মুঠো ফোনে বলেন, ননীগোপাল বিশ্বাসের সঙ্গে বছর তিনেক আগে একটি সামাজিক সংগঠনে সাংগঠনিকভাবে আমার পরিচয় ছিল। ওই সংগঠনের নির্বাচনে তাদের প্যানেল পরাজিত হওয়ায় কিছুটা মনমালিন্য হয়েছিল। তারপর থেকে অদ্যাবধি কোন যোগাযোগ নেই কিন্তু “ননী গোপাল মণ্ডল সাবেক সাংসদ খুলনা-১” নামের ফেসবুক পেজের পোষ্টের নিচে তিনি যে মানহানিকর মন্তব্য করেছেন তা মটেও কাম্য নয়। তিনি আরো বলেন, আমার পক্ষ থেকে সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী দায়ের ও লিগ্যাল নোটিশের মাধ্যমে আগামী ৭ দিনের মধ্যে উক্ত বিতর্কিত মন্তব্যের জবাব চাওয়া হয়েছে, ব্যর্থতায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন ২০০৬ এর ( সংশোধিত ২০১৩) এর ৫৭ ধারায় বর্ণিত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হবো।

প্রগতি মানসিক রোগ ও মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বসুন্ধরা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালক বিধান বিশ্বাস বলেন, তার সম্পর্কে ওই ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য করায় সামাজিকভাবে তার সম্মানক্ষুন্ন হচ্ছে। ননী বিশ্বাস একজন সাবেক সাংসদের ফেজবুক পেজের একটি গুরুত্বপূর্ণ পোষ্টের নিচে অসিম বৈদ্য, কানাই মণ্ডল ও আমাকে জড়িয়ে যে ধরণের অবমানকর মন্তব্য করেছে তা আদৌ ঠিক নয়।

এ ব্যাপারে বাংলার দিনকাল এর প্রকাশক ননী গোপাল বিশ্বাসের কাছে জানতে চাইলে কোন সদুত্তর না দিতে পেরে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ না করার অনুরোধ জানান।