শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৩:১২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
বিএনপিকে রাজপথে শক্ত হাতে মোকাবেলা করা হবে লেখাপড়ার সাথে খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চা একান্ত প্রয়োজন -সিটি মেয়র কলাপাড়ায় ২০ কেজি মাংসসহ দুই হরিন শিকারী আটক তেরখাদায় জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মফিজুর রহমানের শীতবস্ত্র বিতরণ শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবান: তেরখাদায় এমপি আব্দুস সালাম মূর্শেদী মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক স্থাপনা নির্মাণে প্রধান শিক্ষকের চক্রান্ত ! চট্টগ্রামের হটহাজারীতে মন্দিরে হামলা ও ভাংচুর মামলার আসামীর কারাগারে মৃত্যু পতাকাসহ পাকিস্তান দলকে দেশে ফেরত পাঠানো উচিত : তথ্যপ্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ ভবদহের স্থায়ী জলাবদ্ধতা নিরসনে ভুক্তভোগীদের অবস্থান কর্মসূচি পালন করোনাকালীন এক লাখ ৩৫ হাজার শ্রমিককে চিকিৎসা সেবা দিয়েছে শ্রম কল্যাণ কেন্দ্র

কেসিসি মেয়রের কাছে শিশুদের ১১ দফা দাবি

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় রবিবার, ২৪ মার্চ, ২০১৯
  • ৪৫৩ পড়েছেন

তথ্যবিবরণী :

শিশুকল্যাণে কার্যকর বাজেট বরাদ্দের জন্য খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের কাছে খুলনা শিশু ফোরামের শিশুরা ১১ দফা দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি প্রদান করেছে। এসময় সিটি মেয়র দাবিগুলো বিবেচনার আশ্বাস দেন।

ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের সাউদার্ন বাংলাদেশ রিজিয়নের জীবনের জন্য প্রকল্পের সহযোগিতায় শিশু ফোরাম খুলনার আয়োজনে ‘শিশুদের বাজেট ভাবনা সংলাপ’ আজ (রবিবার) সকালে খুলনা সিএসএস আভা সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক। এই অনুষ্ঠানে শিশু ফোরামের শিশুরা ১১দফা দাবি পেশ করে। শিশুদের ১১ দফা দাবির মধ্যে- খাত ভিত্তিক সুনিদিষ্ট বাজেট বরাদ্দ রাখা, শিশুর প্রতি সহিংসতা বন্ধে দীর্ঘমেয়াদী পদক্ষেপ, শিশুদের ডাটাবেইজ তৈরি, শিশু সুরক্ষায় স্থায়ী কমিটি গঠন, নগর ভবনে শিশু কর্নার স্থাপন, শিশুশ্রমে নিয়োজিতদের জন্য বাজেট বরাদ্দ, শিশুদের বিনোদনের ব্যবস্থা রাখা, একজন মনোসামাজিক পরামর্শক নিয়োগ দেওয়া উল্লেখযোগ্য।

সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, সিটি কর্পোরেশনের আগামী বাজেটে শিশুদের জন্য বাজেট বরাদ্দ থাকবে। তাদের খেলাধুলার ব্যবস্থা করতে সিটি কর্পোরেশন ইতোমধ্যে আধুনিক খুলনা প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি। তিনি শিশুদের ভালবাসতেন বলে তাঁর জন্মদিনে জাতীয় শিশু দিবস পালন করা হয়। স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে কেউ যেন বঞ্চিত না হয়, সেই জন্য ১৯৭২ সালের সংবিধানে মৌলিক অধিকারের সাথে শিশু ও নারীদের অধিকার লিপিবদ্ধ করা হয়। শিশুদের জন্য সরকারের বিভিন্ন দপ্তর ও বেসরকারি সংস্থাসমূহ কাজ করে যাচ্ছে। এসকল কাজ সমন্বিতভাবে হলে সবাই এর উপকার পাবে। শিশুদের অবস্থা বদলে যাবে। কেউ বঞ্চিত হবে না। শিশু শ্রমের বিষয়টি অনেক সময় পরিবার হতে উৎসাহিত করা হয়। বাল্য বিবাহের বিরুদ্ধে পরিবারকে সচেনতন হতে হবে। ১৮ বছর বয়সের আগে মেয়েকে বিয়ে দেয়ার কোন সুযোগ নেই। শিশুরা আগামী দিনের কর্ণধার।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর আমেনা হালিম বেবি, আঞ্চলিক তথ্য অফিস খুলনার উপপ্রধান তথ্য অফিসার ম. জাভেদ ইকবাল, জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আবুল আলম, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর খুলনার উপপরিচালক নার্গিস ফাতেমা জামিল, কলকরখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের উপমহাপরিদর্শক মো: আরিফুল ইসলাম, সমাজসেবা দপ্তরের উপপরিচালক খান মোতাহার হোসেন, জেলা শিক্ষা অফিসার খন্দকার রুহুল আমিন, খুলনা প্রেস ক্লাবেব সভাপতি এস এম হাবিব,ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের সাউদার্ন বাংলাদেশ রিজিয়নের রিজিওনাল ফিল্ড ডাইরেক্টর লিমা হান্না দারিং, ইউসেপ খুলনার আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক গোপাল চন্দ্র মজুমদার ও খুলনা কারিতাসের ফিন্যান্স এন্ড এডমিন বিভাগের সমন্বয়ক সন্তোষ দাস। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শিশু ফোরাম খুলনার সভাপতি আয়েশা দেওয়ান ও স্বাগত জানান জয়তুন আক্তার।

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

এ ধরনের আরো সংবাদ
© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)
Hwowlljksf788wf-Iu