ঢাকা ০৭:০৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রূপসায় বোরো ধান কাটা শুরু

রূপসা প্রতিনিধি, খুলনা :

খুলনার রূপসা উপজেলায় বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। এবার ধানের ফলন ভাল হয়েছিল। তাই প্রথম দিকে ভীষণ খুশি ছিল কৃষক। তবে সেই খুশি অনেক কৃষকের জন্য হতাশায় রূপ নিয়েছে। কারন প্রায় জমিতে কারেন্ট পোকার আক্রমণে ধান নষ্ট হয়ে গেছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, চলতি বোরো মৌসুমে উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে ৫৯৭০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষ করা হয়েছে। গত বছর থেকে এবার ২৭০ হেক্টর জমির আবাদ বেশি হয়েছে।

সরেজমিনে চাঁদপুর বিলে গিয়ে দেখা গেছে, বিভিন্ন মাঠে পাকা ধানের সোনালী শীষ বাতাসে দুলছে। কৃষকেরা ধান কাটছেন। কেউ আবার প্রস্তুতি হিসেবে যাবতীয় উপকরণ সংগ্রহে ব্যস্ত।

উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের চাষি সালেম বলেন, এবার আড়াই বিঘা জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছিলাম। কিন্তু পুরো ক্ষেত কারেন্ট পোকা বিনষ্ট করে দিয়েছে। যার কারনে এ বছর আমার মতো অনেক কৃষকের লোক সানের মুখে পড়তে হয়েছে। কাজদিয়া গ্রামের মিজান খান বলেন,ইরি- বোরোর উপর এবার নানা বিপদ যাচ্ছিল। এই ফসলের ওপর আমরা অনেকাংশে নির্ভরশীল। তাই আমাদের কাছে ফসল ঘরে তোলার আনন্দই বড় আনন্দ।

অপরদিকে কৃষক জিয়া খান বলেন, বোরো ফসলের ওপর আমার পরিবার নির্ভরশীল। এবার তিন বিঘায় বোরো আবাদ করেছি। বছরের খাবার রাখার পর বাকি ধান বিক্রি করে দেব ।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ফরিদুজ্জামান বলেন, লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে বোরো আবাদ করা হয়েছে। এখন ধানের ন্যায্যমূল্য পেলে কৃষকের মুখে হাসি ফুটবে।

Tag :
About Author Information

বাংলার দিনকাল

Editor and publisher

রূপসায় বোরো ধান কাটা শুরু

প্রকাশিত সময় ১০:৫০:৫৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৯

রূপসা প্রতিনিধি, খুলনা :

খুলনার রূপসা উপজেলায় বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। এবার ধানের ফলন ভাল হয়েছিল। তাই প্রথম দিকে ভীষণ খুশি ছিল কৃষক। তবে সেই খুশি অনেক কৃষকের জন্য হতাশায় রূপ নিয়েছে। কারন প্রায় জমিতে কারেন্ট পোকার আক্রমণে ধান নষ্ট হয়ে গেছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, চলতি বোরো মৌসুমে উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে ৫৯৭০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষ করা হয়েছে। গত বছর থেকে এবার ২৭০ হেক্টর জমির আবাদ বেশি হয়েছে।

সরেজমিনে চাঁদপুর বিলে গিয়ে দেখা গেছে, বিভিন্ন মাঠে পাকা ধানের সোনালী শীষ বাতাসে দুলছে। কৃষকেরা ধান কাটছেন। কেউ আবার প্রস্তুতি হিসেবে যাবতীয় উপকরণ সংগ্রহে ব্যস্ত।

উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের চাষি সালেম বলেন, এবার আড়াই বিঘা জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছিলাম। কিন্তু পুরো ক্ষেত কারেন্ট পোকা বিনষ্ট করে দিয়েছে। যার কারনে এ বছর আমার মতো অনেক কৃষকের লোক সানের মুখে পড়তে হয়েছে। কাজদিয়া গ্রামের মিজান খান বলেন,ইরি- বোরোর উপর এবার নানা বিপদ যাচ্ছিল। এই ফসলের ওপর আমরা অনেকাংশে নির্ভরশীল। তাই আমাদের কাছে ফসল ঘরে তোলার আনন্দই বড় আনন্দ।

অপরদিকে কৃষক জিয়া খান বলেন, বোরো ফসলের ওপর আমার পরিবার নির্ভরশীল। এবার তিন বিঘায় বোরো আবাদ করেছি। বছরের খাবার রাখার পর বাকি ধান বিক্রি করে দেব ।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ফরিদুজ্জামান বলেন, লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে বোরো আবাদ করা হয়েছে। এখন ধানের ন্যায্যমূল্য পেলে কৃষকের মুখে হাসি ফুটবে।