ঢাকা ০৭:৩৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রূপসায় বোরো ধানে পোকার আক্রমণ: দিশেহারা কৃষক

রূপসা প্রতিনিধি (খুলনা) :

খুলনার রূপসা উপজেলার ৫ টি ইউনিয়নের অধিকাংশ গ্রামের বোরো ধান ক্ষেতে এখন কারেন্ট পোকার প্রার্দুভাব।

ফসল তোলার আগে এ সমস্যা থেকে উত্তরণে বিভিন্ন ধরনের কীটনাশক প্রয়োগ করেও কোনো ফল মিলছে না। বরং কারেন্ট পোকার আক্রমণে ফসলহানির আশঙ্কায় কৃষকরা এখন দিশেহারা।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) উপজেলার চাঁদপুর বিল ঘুরে দেখা যায়, মাঠে মাঠে সবুজের সমারোহের মাঝে বিবর্ণ হয়ে যাচ্ছে ধানের পাতা। এ নিয়ে কৃষকদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিলেও মাঠপর্যায়ে নেই কোনো কৃষি কর্মকর্তাদের তৎপরতা এমন অভিযোগ কৃষকদের।

ফলে এ বিপদকালে করণীয় সম্পর্কে সঠিক কোনো নির্দেশনা পাচ্ছেন না চাষিরা। চাষিদের অভিযোগ, বাদামী গাছ ফড়িং (বিপিএইচ) বা কারেন্ট পোকা ছড়িয়ে পড়ছে ক্ষেত থেকে ক্ষেতে। ধানের মুকুল বের হওয়ার পর থেকে এ পোকার আক্রমণ বেড়ে গেছে। প্রতিনিয়ত ধান গাছের গোড়া থেকে রস আহরণ করছে। ফলে দ্রুত গাছ ও পাতা শুকিয়ে বিবর্ণ হয়ে শুকিয়ে যাচ্ছে।

উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের চাষি সালেম বলেন, এবার আড়াই শতক জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছিলাম। কিন্তু পুরো ক্ষেত কারেন্ট পোকা বিনষ্ট করে দিয়েছে। বাজারে যে কীটনাশক পাওয়া যায় তাতেও কোনো সুফল আসেনি বলে জানান তিনি।

কাজদিয়া গ্রামের কৃষক জিয়া খান জানান, ধানে যে ভাবে বিলাশ রোগ দেখা দিচ্ছে, যার কারনে ফসল নিয়ে অনেক চিন্তায় রয়েছি।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি সম্পসারন কর্মকর্তা শেখ সাখাওয়াত হোসেন বলেন, কারেন্ট পোকার আক্রমণে ফসল নষ্টের ঘটনা ঘটছে। এই রোগ সারাতে কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে এবং প্রচারপত্র বিতরণ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

Tag :
About Author Information

বাংলার দিনকাল

Editor and publisher

রূপসায় বোরো ধানে পোকার আক্রমণ: দিশেহারা কৃষক

প্রকাশিত সময় ০৬:২১:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৯

রূপসা প্রতিনিধি (খুলনা) :

খুলনার রূপসা উপজেলার ৫ টি ইউনিয়নের অধিকাংশ গ্রামের বোরো ধান ক্ষেতে এখন কারেন্ট পোকার প্রার্দুভাব।

ফসল তোলার আগে এ সমস্যা থেকে উত্তরণে বিভিন্ন ধরনের কীটনাশক প্রয়োগ করেও কোনো ফল মিলছে না। বরং কারেন্ট পোকার আক্রমণে ফসলহানির আশঙ্কায় কৃষকরা এখন দিশেহারা।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) উপজেলার চাঁদপুর বিল ঘুরে দেখা যায়, মাঠে মাঠে সবুজের সমারোহের মাঝে বিবর্ণ হয়ে যাচ্ছে ধানের পাতা। এ নিয়ে কৃষকদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিলেও মাঠপর্যায়ে নেই কোনো কৃষি কর্মকর্তাদের তৎপরতা এমন অভিযোগ কৃষকদের।

ফলে এ বিপদকালে করণীয় সম্পর্কে সঠিক কোনো নির্দেশনা পাচ্ছেন না চাষিরা। চাষিদের অভিযোগ, বাদামী গাছ ফড়িং (বিপিএইচ) বা কারেন্ট পোকা ছড়িয়ে পড়ছে ক্ষেত থেকে ক্ষেতে। ধানের মুকুল বের হওয়ার পর থেকে এ পোকার আক্রমণ বেড়ে গেছে। প্রতিনিয়ত ধান গাছের গোড়া থেকে রস আহরণ করছে। ফলে দ্রুত গাছ ও পাতা শুকিয়ে বিবর্ণ হয়ে শুকিয়ে যাচ্ছে।

উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের চাষি সালেম বলেন, এবার আড়াই শতক জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছিলাম। কিন্তু পুরো ক্ষেত কারেন্ট পোকা বিনষ্ট করে দিয়েছে। বাজারে যে কীটনাশক পাওয়া যায় তাতেও কোনো সুফল আসেনি বলে জানান তিনি।

কাজদিয়া গ্রামের কৃষক জিয়া খান জানান, ধানে যে ভাবে বিলাশ রোগ দেখা দিচ্ছে, যার কারনে ফসল নিয়ে অনেক চিন্তায় রয়েছি।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি সম্পসারন কর্মকর্তা শেখ সাখাওয়াত হোসেন বলেন, কারেন্ট পোকার আক্রমণে ফসল নষ্টের ঘটনা ঘটছে। এই রোগ সারাতে কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে এবং প্রচারপত্র বিতরণ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।