মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম
বিশেষ নিবন্ধ : শ্রাবনের চরিত্রহনণ বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠার পেছনের অনুপ্রেরণা বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বাংলাদেশ-ভারত আমদানি-রফতানি চুক্তির প্রথম ট্রায়ালের পণ্য মোংলায় খালাস : মেঘালয় ও আসামের উদ্দেশ্যে যাত্রা নির্বাচন আসলেই এদেশের কিছু ধান্দাবাজ একত্রিত হয় : তালুকদার খালেক দেশে রিজার্ভ নেই-একদিন দেখবেন শেখ হাসিনাও মসনদে নেই : বিএনপি বঙ্গমাতার গুণাবলী ধারণ করে মেয়েদের এগিয়ে যেতে হবে : খুবি উপাচার্য বঙ্গবন্ধুর বাঙালির মুক্তির মহানায়ক হয়ে ওঠার পেছনে প্রেরণা ছিলেন  বঙ্গমাতা : সিটি মেয়র বঙ্গবন্ধু ছিলেন জাতির কান্ডারি ও রাজনীতির কবি : এসডিএফ চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ বাংলাদেশ-ভারত ট্রানজিট চুক্তি বাস্তবায়নে ভারতের ট্রায়াল জাহাজ মোংলা বন্দরে’ খুলনায় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকীতে দু:স্থ্যদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরন

শতাধিক গ্রাহকের টাকা নিয়ে ফকিরহাটে এক এনজিও উদাও

সংবাদদাতার নাম :
  • প্রকাশিত সময় সোমবার, ১৫ জুলাই, ২০১৯
  • ৩৬১ পড়েছেন

ফকিরহাট প্রতিনিধি :
বাগেরহাটের ফকিরহাটে মানব কল্যান সংস্থা নামক একটি ভুয়া এনজিও শতাধিক গ্রাহকের ১০লক্ষাধিক টাকা আত্মসাৎ করে রাতারাতি পালিয়েছে। অসহায় গ্রাহকরা টাকা উদ্ধারের দাবীতে বাড়িটি ঘেরাও করলে বাড়ির মালিক মুলগেটে তালা ঝুলিয়ে চম্পট দিয়েছে।

ঘটনাটি বাগেরহাট সদর উপজেলা চুলকাঠির সুনগর এলাকায়। স্থানীয়রা জানান, ঢাকার মহম্মদপুর ১৩এ/৩এ ব্লক-বি-বারী রোড হেড অফিস নাম দিয়ে চুলকাঠির সুনগর গ্রামের মুতঃ দাউদ মাষ্টারের পুত্র রফিকুল ইসলামের বাড়ীর দুইটি রুম ভাড়া নেয়। সেখানে বাড়ির মালিক ও তার স্ত্রীর সহযোগীতায় শীলা ও আশরাফুল নামের দুইজন ব্যাক্তি এনজিওর কাজ শুরু করেন। তারা প্রথমে গ্রাহকদের স্বল্প সুধে মোটা অংকের লোন দেওয়ার কথা বলে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করেন। গ্রাহকরা বাড়ির মালিক ও তার স্ত্রীর কথায় বিশ্বাস করে জনপ্রতি ৫০০০/= থেকে শুরু করে ১০,০০০/= টাকা সঞ্চয় রাখতে শুরু করেন।

হঠাৎ ১৪ জুলাই রবিবার গভীর রাতে সকল মালামাল নিয়ে এনজিও দুই কর্মকর্তা শীলা ও আশরাফুল পালিয়ে যায়। বৈলতলী গ্রামের মালেকা বেগম, আরজু বেগম, শিরিনা বেগম সহ অর্ধশতাধীক গ্রাহক জানান, বাড়ির মালিক রফিকুল ইসলাম প্রথমে তাদের গ্রামের এসে নিজেকে ঘনিষ্ট আত্মীয় পরিচায় দিয়ে তাদের সাথে লেনদেন করার জন্য অনুরোধ করেন। তার কথামত পিলজংগ ইউনিয়নের বৈলতলী গ্রামের মালেকা বেগম-৪০০০/=, আরজু বেগম-৫০০০/= শিরিনা বেগম-৫০০০/= মিকাইল হাওলাদার ৫০০০/= জেসমিন বেগম ৩০০০/= আনোয়ারা বেগম ৫০০০/= লখপুর ইউনিয়নের ভট্টেখামার গ্রামের খাদিজা বেগম ৫০০০/= শিউলী বেগম ৫০০০/= টাকা সহ শতাধিক গ্রাহকের প্রায় ১০লক্ষাধিক টাকা আত্মসাৎ করে রাতারাতি পালিয়ে যায়। সকালে লোকমুখে খবর পেয়ে অর্ধশতাধিক গ্রাহক উক্ত বাড়িটি ঘিরে ফেললে বাড়ির মালিক ও তার স্ত্রী মুল গেটে তালা ঝুলিয়ে পালিয়ে যায়।

সংবাদটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করা হলো

এ ধরনের আরো সংবাদ

© All rights reserved by www.banglardinkal.com (Established in 2017)

Hwowlljksf788wf-Iu